• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১

এসি কেনার আগে যে বিষয়গুলো জানা প্রয়োজন


লাইফস্টাইল ডস্ক জুন ৪, ২০২৩, ০৩:৪৯ পিএম
এসি কেনার আগে যে বিষয়গুলো জানা প্রয়োজন

ঢাকা : প্রকৃতিতে যেন আগুন ঝরছে। দিনে যেমন রোদ ও গরম, তেমনি রাতেও দুদণ্ড শান্তি নেই। এই গরমে স্বস্তি পেতে শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্র বা এসির চাহিদা বেড়েছে। অনেকেই নতুন করে ভাবছেন এসি কেনার কথা। এসি কেনার আগে অনেক ধরনের চিন্তা আসে। কোন এসি কিনলে বিদ্যুৎ বিল কম আসবে, কোন রুমের জন্য কোন আকারের এসি প্রয়োজন বা কোন ব্র্যান্ডের এসি ভালো হবে- এমন কিছু প্রশ্নের উত্তর জেনে নিন।

১। রুমের আকার অনুযায়ী সঠিক মাত্রার এসি

এসির আকার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. আরাফাত রহমান জানান, এসি বিস্ফোরিত হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে এসিকে বাড়তি লোড দেওয়া। অর্থাৎ যে ঘরে ৫ টনের এসি প্রয়োজন সেখানে যদি লাগানো হয় ২ টনের এসি, তাহলে যেকোনো সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা। ১০০-১২০ বর্গফুটের রুম হলে ১ টনের এসি যথেষ্ট। ১২০-১৫০ বর্গফুট ঘরের জন্য দরকার দেড় টন এসি। আবার এর চেয়ে বেশি আয়তনের ঘরের জন্য ২ টনের এসি কিনলে ভালো করবেন।

২। উইন্ডো এসি কিনবেন নাকি স্প্লিট এসি?

স্প্লিট এসির সুবিধা হচ্ছে কম্প্রেসর ঘরের বাইরে রাখা যায়। এতে মেশিনের শব্দ শোনা যায় না। আর অসুবিধা হচ্ছে এই এসি সেট করার জন্য ঘরের দেয়াল ভাঙতে হবে আপনাকে। অন্যদিকে উইন্ডো এসি লাগাতে চাইলে একটি জানালা বন্ধ করে দিতে হবে ঘরের। এতে এসি বন্ধ থাকলেও ঘরে আলো বাতাস ঢোকার জায়গা বন্ধ হয়ে যাবে।

৩। ইনভার্টারসহ কিনবেন নাকি ছাড়া?

অবশ্যই ইনভার্টারসহ এসি কেনার চেষ্টা করুন। এতে বিদ্যুতের খরচ সাশ্রয় হবে অনেকটাই। ইনভার্টার থাকলে ঘর প্রয়োজনমতো ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যায় কম্প্রেসর। এই এসির কম্প্রেসর কম ক্যাপাসিটিতেও চলতে পারে, তাই সাধারণ এসি থেকে এই এসিতে বিদ্যুৎ খরচ হয় বেশ খানিকটা কম হয়।

৪। ভালো ফিল্টার দেখে কিনুন

এসি কেনার সময় ভালো ফিল্টার আছে এমন এসি কিনুন। এসির এয়ার ফিল্টার বাতাস থেকে ময়লা এবং জীবাণু দূর করতে সাহায্য করে। এমনকি এটি ধোঁয়া এবং গন্ধও দূর করে। উন্নতমানের ফিল্টার বাতাস পরিষ্কার করার পাশাপাশি ধুলা এবং ময়লা যেন কয়েলে না পৌঁছায় সেটাও নিশ্চিত করে। এতে এসির কর্মক্ষমতা বাড়ে।

৫। বিদ্যুৎ খরচের রেটিং দেখে নিন

ব্যুরো অব এনার্জি এফিসিয়েন্সির স্টার রেটিং দেখে কিনবেন এসি। এসির গায়ে স্টিকারে এই রেটিং দেওয়া থাকে। স্টারের সংখ্যা যত বেশি হবে, এয়ার কন্ডিশনারটির কার্যক্ষমতা তত বেশি। ১ স্টার রেটিং মানে এসিটি ১ বছরে ব্যবহার করে ৮৪৩ ইউনিট। ৫ স্টার মানে এসিটি ব্যবহার করে ৫৫৪ ইউনিট। স্টার বেশি থাকা মানে এসির বিদ্যুৎ বিল কম আসবে।

৬। কোন ব্র্যান্ডের এসি কিনবেন?

সবসময় ভালো ব্র্যান্ড বেছে নেবেন এসি কেনার ক্ষেত্রে। সুনাম ও রিভিউ দেখে কেনার পাশাপাশি আফটার সেল সার্ভিস ভালো এমন এসি কিনবেন। এছাড়াও আশেপাশে সার্ভিস সেন্টার আছে কিনে দেখে নেবেন।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

Wordbridge School
Link copied!