• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

শিক্ষা-রাজনীতির পচনে গণমাধ্যমের ‘মলম’  


নিয়ন মতিয়ুল নভেম্বর ২১, ২০২২, ১১:৫৮ এএম
শিক্ষা-রাজনীতির পচনে গণমাধ্যমের ‘মলম’   

১.
ক্লাস নাইনে ওঠার পর উচ্চতর গণিত পড়তে যেতাম ‍উপজেলা সদরে। খ্যাতনামা স্কুলের নামকরা এক স্যারের কাছে। স্যারের সব ছাত্রই গণিতে লেটার মার্কস (৮০+) পেত। কয়েক দফায় স্যারের কাছে কোর্স শেষ করে এসএসসিতে অংশ নিলাম। আগের রাতে ভাবলাম, বীজগণিত তো মুখস্থ- তাই আগে জ্যামিতির ফুল অ্যানসার করতে হবে। করলামও তাই। তবে বীজগণিতের ১২ নম্বরের জানা অংক শেষ করার আগেই শেষ হয়ে গেল নির্ধারিত সময়। সেই স্যার এসে খাতা উল্টে পাল্টে দেখে উল্টো কাজ করার জন্য কষে এক চড় দিলেন।

পরে বললেন, আমাকে না বলে কেন্দ্র ত্যাগ করবে না। পরীক্ষা শেষে পুরো স্কুল মাঠ তখন ফাঁকা। এর মধ্যেই ডাক পড়লো স্যারের কক্ষে। সঙ্গে স্যারের আরেক ছাত্র। অফিসের পেছনে একটা স্টোর রুমে নিয়ে গেলেন স্যার। তারপর পরীক্ষার খাতা বের করে বললেন, কোন কোন অংক করতে পারোনি, করো। আমি তো বিস্ময়ে থ। স্যার ধমক দিলেন। আমি বললাম, না স্যার, লেটার মার্কস না পেলেও দুঃখ নেই, কিন্তু এ কাজটি করতে পারবো না। স্যার চমকে থমকে গেলেন। পরে সেই ছাত্র আমার হেল্প নিয়ে লিখে ফলাফলে লেটার পেল। আমার লেটার না পাওয়ায় হতাশ হলেন শিক্ষকরা।

২.
ইন্টারে ভর্তি হলাম উত্তরবঙ্গের খ্যাতনামা আজিজুল হক কলেজে। জিলা স্কুল ছাড়া উপজেলা পর্যায়ের খ্যাতনামা সব স্কুলের মেধাবীরা সেখানে ভর্তি হতো। একদিন রসায়নের ব্যবহারিক ক্লাসে এক সহপাঠীর ছোট্ট ভুলে হঠাৎ ক্ষেপে গেলেন স্যার। বললেন, তোমরা তো সব নকলের ছাত্র। বিশেষ করে শহরের বাইরের ছাত্র-ছাত্রীদের দিকে ইঙ্গিত করলেন। তো হঠাৎ এক সহপাঠী জোর দিয়ে বললো, স্যার, গাবতলী উপজেলায় দুজন ছাত্র নকল করেনি। একজন গাবতলী পাইলটের ফার্স্টবয়। আর একজন আপনার সামনে এই যে মতিয়ুল। স্যার বিস্ময়ের দৃষ্টিতে তাকালেন।

৩.
শিক্ষার সেই সময়টা ছিল নব্বয়ের দশক। দেশব্যাপী ভয়াবহ নকলের বন্যা। নকলের সামাজিকীকরণ, রাষ্ট্রীয়করণ, সংস্কৃতিকরণ। একই সঙ্গে অপরাজনীতির হাত ধরে মগজে, মননে দুর্নীতি, অনিয়ম, সন্ত্রাস, রক্তাক্ত ক্যাম্পাস আর অবক্ষয়ের বীজবপন। অনিয়ম আর সন্ত্রাসে ভরপুর মগজধারীরাই এখন লিড দিচ্ছে সমাজ-রাষ্ট্রের। তাদের হাত ধরেই অনিয়ম-দুর্নীতি যেমন গভীরতর হয়েছে, তেমনি রাজনীতির কোয়ালিটির গভীর পতন ঘটেছে। গভীর হয়েছে ক্ষত।

তবে বিস্ময়ের ব্যাপার, আমাদের ‘বোধহীন’ গণমাধ্যম সেই গভীর ক্ষত আবিষ্কার করতে ব্যর্থ হয়। তারা শুধু উপরে থেকে আদর করে মলম লাগায়, অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগের ধারে কাছেও যায় না।

লেখক : সাংবাদিক

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব ভাবনার প্রতিফলন। সোনালীনিউজ-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে লেখকের এই মতামতের অমিল থাকাটা স্বাভাবিক। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য সোনালীনিউজ কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না। এর দায় সম্পূর্ণই লেখকের।

Wordbridge School