• ঢাকা
  • শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০

অ্যালায়েন্স ক্যাপিটালের দুই ফান্ডে অনিয়ম 


নিজস্ব প্রতিবেদক  সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২৩, ১২:৪৭ পিএম
অ্যালায়েন্স ক্যাপিটালের দুই ফান্ডে অনিয়ম 

ঢাকা: অ্যালায়েন্স ক্যাপিটাল অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনাধীন দুই মিউচুয়াল ফান্ডে অনিয়মের কারণে ইউনিটহোল্ডারদের ৫৫ কোটি ১৬ লাখ টাকা মূলধনি ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে বেআইনিভাবে এমটিবি ইউনিট ফান্ড থেকে ৩৪ কোটি ৪৪ লাখ ও অ্যালায়েন্স সন্ধানী লাইফ ইউনিট ফান্ড থেকে ৮ কোটি ৪৩ লাখ টাকা স্থানান্তর করা হয়েছে। 

২০১৪-১৫ থেকে ২০২২-২৩ হিসাব বছর পর্যন্ত অ্যালায়েন্স ক্যাপিটাল অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট পরিচালিত এমটিবি ইউনিট ফান্ড ও অ্যালায়েন্স সন্ধানী লাইফ ইউনিট ফান্ডে সংঘটিত অনিয়মের কারণে এই ক্ষতি হয়েছে বলে জানা যায়।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ফান্ড দুটির কার্যক্রম তদন্তে এ বিষয়টি উঠে এসেছে। এ অনিয়মের ঘটনায় সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান এবং এর প্রধান নির্বাহী ও অন্যান্য কর্মকর্তার পাশাপাশি ফান্ড দুটির ট্রাস্টি, নিরীক্ষক ও কাস্টডিয়ানের দায় খুঁজে পেয়েছে বিএসইসি।

দুই ফান্ড মিলিয়ে স্থানান্তর করা অর্থের পরিমাণ ৪২ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। এ অর্থের বিপরীতে দুই ফান্ডের ১০ কোটি ৩০ লাখ টাকা সুদজনিত ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে এমটিবি ইউনিট ফান্ডে ৮ কোটি ৬২ লাখ ও অ্যালায়েন্স সন্ধানী লাইফ ইউনিট ফান্ডে ১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা সুদজনিত ক্ষতি হয়েছে। মনগড়া বা কাল্পনিক সম্পদের ভিত্তিতে দুই ফান্ডের নিট সম্পদমূল্য (এনএভি) হিসাব করার প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি। এতে দুই ফান্ড থেকে পরিচালন ব্যয় বাবদ ১ কোটি ৯৯ লাখ টাকা অতিরিক্ত পরিশোধ করা হয়েছে। এর মধ্যে এমটিবি ইউনিট ফান্ড থেকে ১ কোটি ৬২ লাখ ও অ্যালায়েন্স সন্ধানী লাইফ ইউনিট ফান্ড থেকে ৩৭ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়েছে।

বিএসইসির তদন্তে উঠে এসেছে, অ্যালায়েন্স ক্যাপিটাল অ্যাসেট ম্যানেজমেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ফান্ড দুটির শুরু থেকে এ বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বেআইনিভাবে ১৪০ কোটি ৩৪ লাখ টাকা সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানিটির বিভিন্ন ব্যাংক হিসাবে স্থানান্তর করেছেন। এর মধ্যে এমটিবি ইউনিট ফান্ড থেকে ১১২ কোটি ও অ্যালায়েন্স সন্ধানী লাইফ ইউনিট ফান্ড থেকে ২৮ কোটি ৩৩ লাখ টাকা স্থানান্তর করা হয়েছে। 

অবশ্য পরবর্তী সময়ে দুই ফান্ডে ৯৭ কোটি ৪৬ লাখ টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে এমটিবি ইউনিট ফান্ডে ৭৭ কোটি ৫৬ লাখ ও অ্যালায়েন্স সন্ধানী লাইফ ইউনিট ফান্ডে ১৯ কোটি ৯০ লাখ টাকা ফেরত এসেছে। এখনো দুই ফান্ডে ৪২ কোটি ৮৭ লাখ টাকা ফেরত আসা বাকি রয়েছে। এর মধ্যে এমটিবি ইউনিট ফান্ডের ৩৪ কোটি ৪৪ লাখ ও অ্যালায়েন্স সন্ধানী লাইফ ইউনিট ফান্ডের ৮ কোটি ৪৪ লাখ টাকা রয়েছে। 

বিএসইসির পর্যবেক্ষণে সম্পদ ব্যবস্থাপক অ্যালায়েন্স ক্যাপিটাল অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট বেশকিছু আইন ও বিধিবিধান লঙ্ঘন করেছে। সম্পদ ব্যবস্থাপক ইউনিটহোল্ডারদের অর্থ ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হয়েছে। বিধিমালা লঙ্ঘন করে প্রতিষ্ঠানটি দুই মিউচুয়াল ফান্ড থেকে বড় অংকের অর্থ বের করে নিয়েছে এবং ব্যক্তিস্বার্থে তা পাচার করেছে। সম্পদ ব্যবস্থাপক ট্রাস্টি ও কাস্টডিয়ানের কাছে ফান্ডের ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে লেনদেনের নির্ভরযোগ্য তথ্য দিতে ব্যর্থ হয়েছে।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, অ্যালায়েন্স ক্যাপিটালের বিরুদ্ধে বেশকিছু অনিয়ম পাওয়া গেছে। এ অনিয়মের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এরই মধ্যে সম্পদ ব্যবস্থাপকের পক্ষ থেকে ফান্ডে কিছু পরিমাণ অর্থ ফেরত দেয়া হয়েছে। আমরা চাই যাতে ইউনিটহোল্ডারদের পুরো অর্থ ফেরত আসে।

এমএস

Wordbridge School
Link copied!