• ঢাকা
  • শনিবার, ২১ মে, ২০২২, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

চাওয়া পাওয়ার হিসেব না মিললেই বন্ধুর আসল চেহারা বেরিয়ে আসে 


নিজস্ব প্রতিবেদক জানুয়ারি ২৩, ২০২২, ০৮:৪২ পিএম
চাওয়া পাওয়ার হিসেব না মিললেই বন্ধুর আসল চেহারা বেরিয়ে আসে 

ইয়াজ আল রিয়াদ ও হাসিব মাহমুদ হিমেল।

ভোলা: চাওয়া পাওয়ার হিসেব না মিললেই বেঈমান বন্ধুদের আসল চেহারা বেরিয়ে আসে বলে মন্তব্য করেছেন ভোলা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসিব মাহমুদ হিমেল।

সাম্প্রতিক ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়কে নিয়ে তার বন্ধু ও ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ইয়াজ আল রিয়াদের ফেসবুক লাইভ নিয়ে এ কথা বলেন তিনি।

ভোলা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসিব মাহমুদ হিমেলের বক্তব্য হুবাহুব তুলে ধরা হল...

এই মেসেজটা আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ভোলা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পরের দিনের। ইয়াজ আল রিয়াদ ভাইয়ের সাথে তোলা ছবি আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি জনাব আল নাহিয়ান খান জয় ভাইয়ের What'sapp এ দেই।  তখন তিনি প্রতিত্তোরে বলেন আমার বন্ধু ইয়াজকে সব সময় সম্মানের জায়গায় রাখবি আর ওর কথার বাইরে যাবি না। আমিও আমার নেতা জয় ভাইয়ের কথাকে সংকল্প হিসেবে ধরে নিই, এবং অক্ষরে অক্ষরে পালনের চেষ্টা করি। আমি প্রতিটা কথা বা কাজ করার আগে ইয়াজ ভাইয়ের সাথে আলোচনা করতাম।  তিনি পরামর্শ দিতেন। ইয়াজ ভাই ছিলে জয় ভাইয়ের সবথেকে ঘনিষ্ঠ বন্ধু। আমি সব সময় দেখেছি জয় ভাই ইয়াজ ভাইকে আপন ভাইয়ের মতোই ভালোবাসতেন। আমার দেখা মতে ইয়াজ ভাইয়ের জন্য জয় ভাই যা করেছে একটা বন্ধুর জন্য তো দূরের কথা আপন ভাইয়ের জন্যও এরকম করে না। সর্বোপরি ইয়াজ ভাইকে জয় ভাই সব সময় আলাদা সম্মান দিতো।  তবে এখন তাদের মাঝে কি হয়েছে সেটা আমি অবগত নই। ইয়াজ ভাই সম্প্রতি জয় ভাইকে নিয়ে লেখালেখি আবার লাইভে এসে তাকে নিয়ে বাজে মন্তব্য এটা দেখে আমি হতবাক। ইয়াজ ভাই জয় ভাইকে দলীয় আদর্শ বিরোধী বলে অভিযোগ দিয়েছে ! আমার এখানে কথা হলো তাহলে এতোদিন বলেননি কেনো? ইয়াজ ভাই আর জয় ভাইয়ের বন্ধুত্ব ২০১০ সাল থেকে। এতোদিন জয় ভাইতো ভালোই ছিলো এখন হঠাৎ করে কিভাবে ইয়াজ ভাইয়ের চোখে খারাপ হয়ে গেলো? সত্যি বলতে গেলে চাওয়া পাওয়ার হিসেব না মিললেই বেইমান বন্ধুদের আসল চেহারা বেরিয়ে আসে। জয় ভাই ইয়াজ ভাইয়ের জন্য এতোকিছু করার পরও তারসাথে বেইমানি!! আমাদের ভোলায় একটা প্রবাদ আছে খায়া বাসনের তলি পারো। অর্থাৎ যে থালায় খাবেন সেই থালাই ফুটা করবেন।  আমি কখনো স্বাপ্নেও কল্পনা করিনি তাদের বন্ধুত্বের মাঝে কখনো ফাটল ধরবে। ইতিহাসে যারা বেইমানি করেছে তারা কেউই কখনো চিরসুখী হতে পারেনি। যাই হোক ভালো থাকবেন ইয়াজ ভাই।  আপনার বেইমানি ছাত্রলীগের ইতিহাসে চিরকাল একটি কলঙ্কময় অধ্যায় হিসেবে থাকবে।

সোনালীনিউজ/আইএ

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System