• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ জুন, ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১

২০০ আসনে নৌকার প্রার্থী চূড়ান্ত করছে আ.লীগ


নিউজ ডেস্ক সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২৩, ০৩:৪১ পিএম
২০০ আসনে নৌকার প্রার্থী চূড়ান্ত করছে আ.লীগ

ঢাকা: দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে। জানুয়ারির শুরুতে ভোটগ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান। মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) গাজীপুরের শ্রীপুরে স্মার্টকার্ড বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণের আশাও করছেন আনিসুর।

এদিকে নির্বাচন নিয়ে অন্য রাজনৈতিক দলগুলোর কোনো তোড়জোড় না থাকলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ তাদের ঘর গোছানোর কাজ শুরু করে দিয়েছে।

নির্বাচনের প্রস্তুতি হিসেবে অক্টোবর মাসে ৩০০টি আসনের মধ্যে ২০০টির প্রার্থী চূড়ান্ত করবে দলটি— এমন গ্রিন সিগন্যাল মিলেছে আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায় থেকে। তারা বলছেন, অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে ১০০টি আসন এবং শেষ সপ্তাহে আরও ১০০টি আসনের প্রার্থীদের তালিকা চূড়ান্ত করা হবে। পরে তাদের মৌখিকভাবে জানিয়ে দেওয়া হবে। তবে, এখনই লিখিত কোনো কাগজ পাবেন না প্রার্থীরা। তফসিল ঘোষণার পর চূড়ান্ত প্রার্থীদের চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং দলের স্থানীয় সরকার ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য কাজী জাফর উল্যাহ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আগামী নির্বাচনে যারা মনোনয়ন পাবেন সেটি নিয়ে আমরা এখন কাজ করছি। এখনও চূড়ান্ত হয়নি। অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে ১০০টি আসনের প্রার্থীদের তালিকা চূড়ান্ত করা হবে। তাদের গ্রিন সিগন্যাল দেওয়া হবে। নির্বাচন কমিশন যতক্ষণ পর্যন্ত তফসিল ঘোষণা না করবেন ততক্ষণ পর্যন্ত তাদের (মনোনীত প্রার্থী) অফিসিয়াল চিঠি দেওয়া হবে না। তবে, নির্বাচনী মাঠে কাজ করার জন্য একটি সিগন্যাল দেওয়া হবে।’

দলীয় সূত্রে জানা যায়, এরই মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীরা নিজ নিজ এলাকায় অবস্থান করছেন। অনেকে নিজের প্রার্থিতা জানান দিয়ে অংশ নিচ্ছেন বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে। আয়োজন করছেন নানা অনুষ্ঠান, অংশগ্রহণ করছেন বিভিন্ন কর্মসূচিতে। সম্ভাব্য প্রার্থীদের চায়ের দোকান থেকে শুরু করে মসজিদের খুতবায়ও বক্তব্য রাখতে দেখা যাচ্ছে। এ ছাড়া, বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের বিভিন্ন উন্নয়নের চিত্র পোস্টার, ব্যানার ও লিফলেটের মাধ্যমে এলাকায় প্রচার করছেন তারা।

গত ৬ আগস্ট সারা দেশের নেতাকর্মীদের নিয়ে বিশেষ বর্ধিত সভা এবং ১২ আগস্ট আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেসব সভায় বর্তমান এমপিদের বিভিন্ন কুকর্মের তথ্য তুলে ধরেন অনেকে। দলের হাই কমান্ড তৃণমূলের দীর্ঘদিনের জমে থাকা ক্ষোভ ও অভিমানের কথা শোনেন। সেই সভায় প্রধানমন্ত্রী আগামী নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের বিজয়ের ব্যাপারে নেতাদের বিভিন্ন দিকনির্দেশনাও দেন।

তৃণমূলের নেতাদের উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি কিন্তু ঘরে বসে থাকি না, সারাদিন কাজ করি, সংগঠনেরও কাজ করি। কোথায়, কার কী অবস্থা, সেটি কিন্তু ছয় মাস পরপর জরিপ করি। আমাদের এমপিদের কী অবস্থা, অন্য জনপ্রতিনিধিদের কী অবস্থা, তার একটি হিসাব নেওয়ার চেষ্টা করি। জাতীয় সংসদ নির্বাচন বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। এর ওপর নির্ভর করছে আমাদের ক্ষমতায় যাওয়া বা না যাওয়া। এটি মাথায় রেখে আমাদের ওপর ভরসা রাখতে হবে। আমরা যখন মনোনয়ন দেব, অবশ্যই আমাদের একটি হিসাব থাকবে যে কাকে দিলে আসনটি পাব।’

এ ছাড়া আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায়ও দলের দুঃসময়ে যারা সামনে ছিলেন, যারা দুর্দিনের কর্মী, কমিটি করার সময় তাদের নাম সামনে রেখে মূল্যায়ন করার নির্দেশ দিয়েছেন দলীয় সভাপতি।

দলীয় সূত্র মতে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জন্য সবধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করছে আওয়ামী লীগ। নির্বাচনের ইশতেহার তৈরি, প্রচার-প্রচারণাসহ যাবতীয় কাজ সাংগঠনিকভাবে করছে দলটি। এরই মধ্যে তৃণমূলের সব তথ্য ও দলের সাংগঠনিক রিপোর্ট হাই কমান্ডকে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া, প্রার্থীদের প্রস্তুত করতে নির্বাচনের আগে নতুন করে আওয়ামী লীগের কোনো শাখায় সম্মেলন করতে দেওয়া হবে না বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে, যেসব স্থানে আগেই তারিখ চূড়ান্ত ছিল শুধুমাত্র সেসব শাখায় সম্মেলন হবে। কেন্দ্রের নির্দেশনা ছাড়া জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কোনো কমিটি ভাঙা যাবে না বলেও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

আইএ

Wordbridge School
Link copied!