• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯

বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগে জাতীয় পে-স্কেল, আসছে নীতিমালা


নিজস্ব প্রতিবেদক আগস্ট ১৩, ২০২২, ০২:৩১ পিএম
বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগে জাতীয় পে-স্কেল, আসছে নীতিমালা

ঢাকা: পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ পদোন্নতি অভিন্ন নীতিমালা-২০২২ প্রণয়ন করছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। চলতি মাসেই সেটি চূড়ান্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

এর ফলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ইচ্ছেমতো জনবল নিয়োগ দেওয়ার সুযোগ আর থাকছে না। কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগের ক্ষেত্রে নির্ধারণ করা হচ্ছে যোগ্যতা। জাতীয় পে-স্কেল অনুযায়ী গ্রেড ও সুবিধা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। 

জানা যায়, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিন্ন পদ্ধতিতে জনবল নিয়োগ-পদোন্নতি কার্যক্রম বাস্তবায়নে একটি নীতিমালা তৈরি করা হচ্ছে। এতে ইউজিসি চেয়ারম্যানকে আহ্বায়ক ও অন্য সব সদস্য, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে। তারা এরই মধ্যে একটি খসড়া নীতিমালা তৈরি করেছেন। দফায় দফায় সেটিতে পরিবর্তনও আনা হচ্ছে।

খসড়া নীতিমালা অনুযায়ী, কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দেবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। প্রত্যেক বিভাগের জন্য একজন কর্মকর্তা, দুজন অফিস সহায়ক ও কম্পিউটার অপারেটর নিয়োগ দেওয়া যাবে। তবে কর্মকর্তা নিয়োগের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা ন্যূনতম চার বছরের স্নাতক ডিগ্রি থাকতে হবে। এর বাইরে কোন পদের জন্য কী ধরনের যোগ্যতা প্রয়োজন হবে সেটিও নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে। শিক্ষকদের টিচিং লোড বা কর্মঘণ্টাও নির্ধারণ করা হয়েছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরও কর্মঘণ্টা নির্ধারণ করা থাকবে।

নিয়োগের ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন কর্মকর্তা নবম গ্রেডে যোগদান করবেন। এরপর তিন থেকে চার বছর চাকরি অভিজ্ঞতা অর্জনের পর অষ্টম গ্রেডে, পরবর্তী তিন-চার বছর পর সপ্তম গ্রেডে যাবেন। এভাবে একজন কর্মকর্তা পঞ্চম গ্রেড পর্যন্ত যেতে পারবেন। এর ওপর আর পদোন্নতি দেওয়া যাবে না। অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন এর ব্যত্যয় ঘটে।

এ বিষয়ে ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ্র বিশ্বাস সাংবাদিকদের বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ আন্দোলন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সুযোগ-সুবিধা আদায় করতে। এ বিষয়ে কোনো গাইডলাইন না থাকায় ভিন্ন ভিন্ন সুবিধা দেওয়া হয়। এতে এক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে বৈষম্য তৈরি হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে এক ধরনের আর সরকারি অফিসে আরেক ধরনের সুবিধা দেওয়ায় তৈরি হয় জটিলতা।

তিনি বলেন, অষ্টম জাতীয় পে-স্কেল অনুযায়ী পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ-পদোন্নতিতে অভিন্ন নীতিমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে। বিসিএসে যেসব যোগ্যতা প্রয়োজন হয় তারচেয়ে বেশি যোগ্যতা চাওয়া হয় বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা নিয়োগের ক্ষেত্রে। এটি পরিবর্তন করে যোগদানের ক্ষেত্রে চার বছরের গ্র্যাজুয়েশন ডিগ্রি নির্ধারণ করা হয়েছে।

সোনালীনিউজ/আইএ

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System