• ঢাকা
  • বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১

কানাডা ছেড়ে যাওয়ার প্রবণতা বাড়ছে অভিবাসীদের


নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি মে ৫, ২০২৪, ১০:৫৬ এএম
কানাডা ছেড়ে যাওয়ার প্রবণতা বাড়ছে অভিবাসীদের

ঢাকা : কানাডা সরকারের নানারকম শর্ত ও নিয়মের বেড়াজালে বর্তমানে দেশটি ছেড়ে যাওয়ার প্রবণতা বেড়েছে অভিবাসীদের মধ্যে। কানাডার সরকারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৬ সালেই প্রায় ৪০ লাখ নাগরিক দেশে ছেড়েছেন, যা দেশটি মোট জনসংখ্যার ১১ শতাংশ।

গত সোমবার প্রকাশিত ম্যাকগিল ইনস্টিটিউট ফর দ্য স্টাডি অব কানাডার গবেষণায় দেখা গেছে, কানাডীয়দের দেশ ছাড়ার অন্যতম কারণ গুরুত্বপূর্ণ কিছু চাহিদা সামর্থ্যের বাইরে চলে যাওয়া।

স্ট্যাটিসটিকস কানাডা অনুসারে, ২০১৭ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে কানাডীয়দের ৩১ শতাংশ বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন।

ম্যাকগিলের গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কানাডা নতুন নাগরিকদের ধরে রাখতে পারছে না। কানাডায় আগমনের চার থেকে সাত বছরের মধ্যে তাঁরা দেশ ত্যাগ করছেন। এর অন্যতম একটি কারণ এখানে অনেক কিছুই তাঁদের সামর্থ্যের মধ্যে নেই।

প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়, বিদেশি ডিগ্রিকে স্বীকৃতি দেওয়ার ব্যাপারে কানাডার অনমনীয় এবং অবাস্তব দৃষ্টিভঙ্গির কারণেই অভিবাসীরা কানাডায় এসে পছন্দসই চাকরি খুঁজে পান না এবং ক্যারিয়ার গড়তে হিমশিম খান। ফলে এ দেশ ছেড়ে চলে যাওয়া কানাডীয়দের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে।

কানাডার প্রায় অর্ধেক অধিবাসী তাঁদের কানাডীয় মা-বাবার মাধ্যমে নাগরিকত্ব অর্জন করেছেন। আর এক-তৃতীয়াংশ জন্মসূত্রে কানাডীয়। অবশিষ্ট ১৫ শতাংশ কানাডীয় অন্য দেশে জন্ম গ্রহণ করেছেন, পরে তাঁরা কানাডার নাগরিকত্ব পেয়েছেন। এই নাগরিকদের দেশ ছাড়ার কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে ভ্রমণ, চাকরি ও পড়াশোনার সুযোগ।

স্ট্যাটিসটিকস কানাডার তথ্য অনুসারে, বিদেশে বসবাসকারী কানাডীয়দের গড় বয়স ৪৬ দশমিক ২ যা জাতীয় গড়ের চেয়ে সামান্য বেশি। কানাডীয়দের মধ্যে বৃহত্তম গোষ্ঠীর বয়স ৪৫ থেকে ৫৪ বছরের মধ্যে।

এশিয়া-প্যাসিফিক ফাউন্ডেশন অব কানাডার তথ্য অনুযায়ী, বিদেশে বসবাসকারী কানাডীয়দের অধিকাংশ থাকেন যুক্তরাষ্ট্র, হংকং ও যুক্তরাজ্যে। সমীক্ষায় দেখা গেছে, জনসংখ্যার তুলনায় বিদেশে বসবাসকারী কানাডীয়দের সংখ্যা যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় পাঁচ গুণ এবং যুক্তরাজ্যের প্রায় সমান।

প্রতিবেদনটি অনুমোদন করেছে বি সি সেন ইউয়েন পাউ উয়ের কার্যালয়। পাউ উ বলেছেন, দেশ ছেড়ে চলে যাওয়া নাগরিকদের সমর্থনের জন্য কানাডা আরও বেশি কিছু করতে পারে। তিনি যুক্তি দিয়ে বলেন, প্রবাসী কানাডীয়রা বিশ্বজুড়ে কানাডার কূটনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক অবস্থান আরও প্রসারিত করতে পারেন।

এক সাক্ষাৎকারে পাউ উ বলেন, ‘আমরা একটি সংকীর্ণমনা দেশ। আন্তর্জাতিকতাবাদী এবং বৈশ্বিক হওয়ার দাবি করলেও আমাদের প্রবণতা কেবল দেশের ভেতর তাকানোতেই সীমাবদ্ধ।’

পাউ উ বলেন, ‘কানাডীয়রা কেন বিদেশে গেছেন, কানাডা সম্পর্কে তাঁদের উপলব্ধি এবং দেশে ফেরার পরিকল্পনার মতো কিছু মূল বিষয়ে আমরা এখনও খুব কম জানি। ভালো ডেটা থেকেই ভালো নীতি প্রণয়ন সম্ভব। তাই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ বিষয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন।’

এমটিআই

Wordbridge School
Link copied!