• ঢাকা
  • রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭

সম্ভাবনার হাতছানি ‘ব্লু-ইকোনমি’


নিজস্ব প্রতিবেদক ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২১, ০১:৩৩ পিএম
সম্ভাবনার হাতছানি ‘ব্লু-ইকোনমি’

ঢাকা : বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ অর্থনীতিতে সম্ভাবনার হাতছানি দিচ্ছে সমুদ্র সম্পদনির্ভর অর্থনীতি বা ব্লু-ইকোনমির মাধ্যমে। তবে এই অর্জনের পথে গত ৮ বছরে বাংলাদেশ নিজেদের প্রস্তুতি কিছুটা সম্পন্ন করলেও বাস্তবায়নে অগ্রগতি খানিকটা কম। কারণ, ব্লু-ইকোনমির অন্যতম শর্ত হচ্ছে উচ্চমানের দক্ষতা ও কারিগরি অভিজ্ঞতা।

এক্ষেত্রে বাংলাদেশের আগের অভিজ্ঞতা ও টেকনিক্যাল প্রস্তুতির সক্ষমতায় সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তবে এ সম্পর্কে অভিজ্ঞ দেশগুলোর সহায়তা নিয়ে ধীরে ধীরে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশের ব্লু-ইকোনমির।

বাংলাদেশে সমুদ্র বিজয় নিয়ে যে মাতামাতি হয়েছিল, তারপর সমুদ্র অর্থনীতি নিয়ে যে গতিতে এগোনো উচিত ছিল, বাস্তব পরিস্থিতি ঠিক উল্টো। জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে ২০১৭ সালে ‘ব্লু-ইকোনমি সেল’ নামে একটি ক্ষুদ্র প্রশাসনিক সেল গঠন ছাড়া তেমন কোনো অগ্রগতি নেই। কিন্তু এই সেলের হাতে কোনো আইনগত ক্ষমতা নেই। তাদের সিদ্ধান্ত মানার ক্ষেত্রেও কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। এসব বিবেচনায় সংসদীয় কমিটি ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে সেলের বদলে আইনগত ক্ষমতা দিয়ে একটি কর্তৃপক্ষ গঠনের সুপারিশ করেছিল।

এরপর প্রায় তিন বছর কেটে গেছে, কোনো ফল মেলেনি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ২০১৪ ও ২০১৭ সালে জাতীয় পর্যায়ে দুটি ওয়ার্কশপ করে সমুদ্র অর্থনীতির সম্ভাব্য ২৬টি খাত চিহ্নিত করেছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স ইউনিটের সচিব খুরশিদ আলম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পন্ন হয়েছে। সাগরে বাংলাদেশের সমান একটা জলসীমা আমরা পেয়েছি। এখন একে কাজে লাগিয়ে উন্নত দেশের কাতারে পৌঁছানোর পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

কিন্তু সম্পূর্ণ নতুন একটি সম্ভাবনা নিয়ে কাজ করতে তেমন বিশেষজ্ঞ ও প্রযুক্তি আমাদের নেই। ধীরে ধীরে এসব ঘাটতি কাটিয়ে উঠার চেষ্টা চলছে। যেভাবে এই সেক্টরে অগ্রগতি চলছে তাতে অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশ ব্লু-ইকোনমির ক্ষেত্রে নেতৃত্ব দেবে।

বিশেষজ্ঞরা মতে, আগামের বঙ্গোপসাগরের বিশাল জলরাশি এবং তার তলদেশের অফুরন্ত প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণের জন্য প্রস্তুতিটা অপরিহার্য। সমুদ্রের অফুরন্ত ভান্ডার থেকে প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণ করাও অত্যন্ত টেকনিক্যাল সক্ষমতার বিষয়। সেখানে চাইলেই হুট করে বড় কিছু করে ফেলা সম্ভব নয়।

২০১২ সালে আন্তর্জাতিক শালিসি আদালতের রায়ের মাধ্যমে মিয়ানমারের সঙ্গে মামলায় প্রায় এক লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটারেরও বেশি সমুদ্র এলাকার দখল পায় বাংলাদেশ, যা আরেকটি বাংলাদেশের সমান।

মিয়ানমারের সঙ্গে মামলায় নতুন সমুদ্রসীমা অর্জনের দুই বছর পর ২০১৪ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার বিরোধপূর্ণ সমুদ্রসীমানার আনুমানিক ২৫ হাজার ৬০২ বর্গকিলোমিটারের মধ্যে ১৯ হাজার ৪৬৭ বর্গকিলোমিটারের অধিকার পায় বাংলাদেশ। এরপর থেকে কখনো ধীরে কখনো দ্রুতগতিতে ব্লু-ইকোনমি চূড়ান্ত রূপরেখার কাজ করতে থাকে বাংলাদেশ।

নতুন সমুদ্রসীমা অর্জনের পরের বছরই ২০১৩ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা  করে বাংলাদেশ। এটি দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় এবং বিশ্বের ১২তম মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়। ব্লু-ইকোনমি অর্জনের লক্ষ্যে মেরিটাইম বিষয়ক উচ্চতর পড়াশোনার জন্য প্রতিষ্ঠিত বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় এটি। প্রায় দেড় হাজার শিক্ষার্থীর এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিবছর বিপুলসংখ্যক দক্ষ পেশাজীবী তৈরি হচ্ছে, যারা ব্লু-ইকোনমি অর্জনের ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ ভূমিকা রাখতে পারবেন।

এদিকে বাংলাদেশ নৌবাহিনী সদর দপ্তরের সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব মেরিটাইম রিচার্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (বিমরাড) নামে একটি উচ্চতর গবেষণা প্রতিষ্ঠান। এটি ২০১৮ সালে সাবেক নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল নিজাম উদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে সমুদ্রসম্পদের টেকসই ব্যবহারের জন্য সামুদ্রিক বুদ্ধিজীবী, গবেষক এবং প্রতিষ্ঠানকে সমন্বিত করে প্রতিষ্ঠিত হয়।

এই প্রতিষ্ঠান সমুদ্রবিষয়ক সুরক্ষা, অনুসন্ধান, সমুদ্রসম্পদ সংরক্ষণ, সমুদ্রবিজ্ঞান ও প্রযুক্তিসহ নানা বিষয় নিয়ে কাজ করছে। এছাড়া জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে ২০১৭ সালে ব্লু-ইকোনমি সেল গঠন করে সরকার। সমুদ্রসম্পদ সুরক্ষায় ২০১৯ সালে মেরিটাইম জোন অ্যাক্ট করেছে সরকার।

বিশেষজ্ঞদের মতে, বিশ্ব অর্থনীতিতে সমুদ্র নানাভাবেই অবদান রেখে চলেছে। প্রাপ্ত তথ্যে বলা হচ্ছে, বিশ্বের ৪৩০ কোটিরও বেশি মানুষের ১৫ ভাগ প্রোটিনের জোগান দিচ্ছে সামুদ্রিক মাছ, উদ্ভিদ ও জীবজন্তু। পৃথিবীর ৩০ ভাগ গ্যাস ও জ্বালানি তেল সরবরাহ হচ্ছে সমুদ্রতলের বিভিন্ন গ্যাস ও তেলক্ষেত্র থেকে। ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় অর্থনীতির সিংহভাগ সমুদ্রনির্ভর।

অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়া সমুদ্রসম্পদ থেকে বর্তমানে প্রায় ৪৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে। ২০২৫ সালে এ খাত থেকে এক’শ বিলিয়ন ডলার আয় করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কাজ করছে দেশটির সরকার।

এ ছাড়াও চীন, জাপান, ফিলিপাইনসহ বেশ কিছু দেশ দুই থেকে তিন’শ বছর আগেই সমুদ্রকেন্দ্রিক অর্থনীতির দিকে মনোনিবেশ করেছে। বর্তমানে বিশ্ব অর্থনীতির প্রায় পাঁচ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারের কর্মকাণ্ড হচ্ছে সমুদ্রকে ঘিরে।

এদিকে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ব্লু-ইকোনমির সম্ভাবনাসমূহ পরিপূর্ণভাবে কাজে লাগাতে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ।

গত জুনে জাতিসংঘে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতদের জন্য আয়োজিত সমুদ্রতলের সম্পদে টেকসই উন্নয়ন ঘটিয়ে প্রাপ্ত সুবিধার ন্যায়সঙ্গত বণ্টন  ও স্বল্পোন্নত, ভূবেষ্টিত স্বল্পোন্নত এবং উন্নয়নশীল ক্ষুদ্র দ্বীপ-রাষ্ট্রসমূহের সুযোগ’ শীর্ষক এক ব্রিফিং অনুষ্ঠানে এই সহযোগিতা চান  জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।

বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের বিশাল জলসীমাকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে প্রতিবছর হাজার হাজার কোটি ডলার বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব বলে জানান বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, বাংলাদেশ বঙ্গোপসাগরের যে অঞ্চলের মালিকানা পেয়েছে, সেখানে অন্তত চারটি ক্ষেত্রে কার্যক্রম চালানো হলে ২০৩০ সাল নাগাদ প্রতিবছর প্রায় আড়াই লাখ কোটি মার্কিন ডলার উপার্জন করা সম্ভব।

এই ক্ষেত্র চারটি হলো তেল-গ্যাস উত্তোলন, মৎস্য সম্পদ আহরণ, বন্দরের সুবিধা সম্প্রসারণ ও পর্যটন। বঙ্গোপসাগরে ৪৭৫ প্রজাতির মাছসহ ৩৬ প্রজাতির চিংড়ি এবং বিভিন্ন প্রকার অর্থনৈতিক ও জৈব গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ রয়েছে। ২০১৭-১৮ সালে দেশে উৎপাদিত মোট ৪৩ লাখ ৩৪ হাজার টন মাছের মধ্যে সাড়ে ৬ লাখ মেট্রিক টন এসেছে বঙ্গোপসাগর থেকে। অথচ এ সমুদ্র এলাকায় বছরে ৮০ লাখ টন মাছ ধরার সুযোগ রয়ে গেছে।

এদিকে ‘সেভ আওয়ার সি’র দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে বঙ্গোপসাগরে প্রতিবছর ৮ মিলিয়ন টন মাছ ধরা পড়ে। এর মধ্যে ০.৭০ মিলিয়ন টন মাছ বাংলাদেশের মৎস্যজীবীরা আহরণ করে। নানা প্রজাতির মূল্যবান মাছ ছাড়াও সমুদ্রসীমায় নানা ধরনের প্রবাল, গুল্মজাতীয় প্রাণী, ৩৬ প্রজাতির চিংড়ি, তিন প্রজাতির লবস্টার, ২০ প্রজাতির কাঁকড়া এবং ৩০০ প্রজাতির শামুক-ঝিনুক পাওয়া যায়। উপকূলীয় অঞ্চলের ৫ লক্ষাধিক জেলের জীবন-জীবিকার জোগান আসে এই সমুদ্র থেকেই।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই প্রাণিসম্পদ ছাড়াও ১৩টি জায়গায় আছে মূল্যবান বালু, ইউরেনিয়াম ও থোরিয়াম। এগুলোতে মিশে আছে ইলমেনাইট, গার্নেট, সিলিমেনাইট, জিরকন, রুটাইল ও ম্যাগনেটাইটের মতো মূল্যবান ধাতব উপাদান।

সোনালীনিউজ/এমটিআই