• ঢাকা
  • বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১, ২০ শ্রাবণ ১৪২৮
abc constructions

ক্রিকেটার থেকে ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা, হঠাৎ নিখোঁজে সর্বস্তরে উদ্বেগ


মো: অআজাদ হোসেন জুন ১৭, ২০২১, ০৫:২৬ পিএম
ক্রিকেটার থেকে ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা, হঠাৎ নিখোঁজে সর্বস্তরে উদ্বেগ

ফাইল ছবি

ঢাকা : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এখন এক ছবি বা একটি নাম বার বার চলে আসে। তিনি বাংলাদেশের আলোচিত ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান। রংপুরের ক্রিকেট অঙ্গনে সবার পরিচিত মুখ ছিলেন তিনি। তবে ক্রিকেট জগৎ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে বেছে নেন ইসলামী পথ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁর ওয়াজের ভিডিওগুলো খুব সমাদৃত হয়েছিল। আর দশজন বক্তার মতো গতানুগতিক ছিলেন না আবু ত্ব-হা। অত্যন্ত স্মার্ট, পরিষ্কার ও মানসম্মত বাংলায় চমৎকার বাচনভঙ্গিতে কথা বলেন তিনি।

তবে হঠাৎ করে নিখোঁজ তিনি। নিখোঁজের ৭ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো সন্ধান মেলেনি আলোচিত এই ধর্মীয় বক্তার। গত ১০ জুন দিবাগত রাত থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন বলে অভিযোগ করেছে তাঁর পরিবার। তবে পুলিশ কর্মকর্তাদের বিশ্বাস খুব শিগগিরই আদনানের নিখোঁজ রহস্যের জট খুলবে।

আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান দেশে সম্প্রতি সময়ে খুব জনপ্রিয় একজন বক্তা হয়ে উঠেছিলেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁর ওয়াজের ভিডিওগুলো খুব সমাদৃত হয়েছিল। আর দশজন বক্তার মতো গতানুগতিক ছিলেন না আবু ত্ব-হা। অত্যন্ত স্মার্ট, পরিষ্কার ও মানসম্মত বাংলায় চমৎকার বাচনভঙ্গিতে কথা বলেন তিনি। প্রস্তুতি নিয়ে, গুছিয়ে, বিষয়ের মধ্যেই থেকে টু দ্য পয়েন্টে কথা বলেন। উচ্চারণে আভিজাত্য স্পষ্ট। প্রচলিত ওয়াজের ভঙ্গি তার নয়। কোরাআনের আয়াত ও হাদিসের আরবি ইবারতও আনেন বক্তৃতায়।

ক্রিকেটার থেকে জনপ্রিয় ইসলামী বক্তা : একসময়কার তুখোড় ক্রিকেটার আফসানুল আদনান ত্ব-হা। রংপুরের ক্রিকেট অঙ্গনে সবার পরিচিত মুখ ছিলেন তিনি। রংপুর লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে ভর্তি হন রংপুর কারমাইকেল কলেজে। সেখান থেকে দর্শনে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করেন তিনি। স্নাতকে পড়ার সময় থেকেই ধর্মের প্রতি তাঁর ঝোঁক বাড়তে থাকে। বাবার মৃত্যুর পর রংপুর নগরীর সেন্ট্রাল রোডের নানার বাড়িতে বড় হয়েছেন তিনি। ৩১ বছর বয়সী আদনান ইসলাম ধর্মের প্রচুর বই পড়তেন এবং গবেষণা করতেন। দর্শনে স্নাতকোত্তর করা আদনান অল্পদিনেই হয়ে ওঠেন একজন ভালো ইসলামী বক্তা। তিনি উগ্রবাদকে সমর্থন করতেন না বলেও দাবি করেছেন স্বজনরা।

আদনানের মা আজেদা বলেছেন, দর্শনে স্নাতকোত্তর পড়ে বাড়ির পাশে আল জামেয়া আসসালাফিয়া মাদরাসায় পড়াশুনা করছেন আদনান।

আদনান অনলাইনে আরবি পড়ানোর পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন মসজিদে গিয়ে জুমার খুতবা দেন বলে পরিবারের সদস্যরা জানান। তিনি ধর্মীয় বক্তা হিসেবেও জনপ্রিয়; তার ফেসবুকে পেজের অনুসারীর সংখ্যা ৫২ হাজার।

আদনানের স্ত্রী সাবিকুন্নাহার বলেন, ধর্মীয় মতবাদ নিয়ে আলেমদের একটি পক্ষের সঙ্গে তার মতবিরোধ তৈরি হয়। এসব কারণে তিনি পরিচিত আলেমদের কাছে সাহায্য চেয়েও কোনো সাড়া পাননি। বরং সাধারণ মানুষ ও অনুসারীরা আদনানকে ফিরে পেতে অনলাইনে অনেক বেশি সোচ্চার।

যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী : এদিকে ত্ব-হা আদনান নিখোঁজের বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে রয়েছে এবং তার নিখোঁজের রহস্য উদঘাটন করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, কোথায় কী অবস্থায় তিনি আছেন, তার রহস্য উদঘাটন করা হবে। 

সংসদে আলোচনা : সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনের বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেছেন, নায়িকা পরীমনির মতো ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের পরিবারের সৌভাগ্য হয়নি।

রুমিন বলেন, ‘কোথায় মামলা করবো? কার কাছে মামলা করবো? কার কাছে অভিযোগ করব? কেউ তো জিডি নিতে রাজি হচ্ছেন না, কথাটি বলছিলেন ত্ব-হার (আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান) স্ত্রী। গত বৃহস্পতিবার থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন এবং তার সঙ্গে আরও তিন ব্যক্তি নিখোঁজ রয়েছে। এখন পর্যন্ত তাদের ব্যাপারে কোনো খোঁজ পাওয়া যায় নাই। 

তিনি বলেন, একই সময় একই ধরনের অভিযোগ করতে দেখেছি নায়িকা পরীমনিকে। তবে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে তিনি ভাগ্যবতী। কারণ তার মামলা নেয়া হয়েছে এবং অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু সেই সৌভাগ্য হয়নি ত্ব-হার পরিবারের।

বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ বলেছেন, ‘আজকে আমরা অপহরণ-গুম-খুনের কথা বলছি। এই কিছুদিন আগে একজন আলেম নিখোঁজ হয়েছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, খোঁজ নিচ্ছি। আজকে যদি তাকে ফিরিয়ে দিতে না পারেন এটা রাষ্ট্রের জন্য বড় ব্যর্থতা হবে। আমি বলবো, আদনানকে অবশ্যই ফিরিয়ে দিতে হবে। তার পরিবারের আহাজারি আপনাকে শুনতে হবে।’

শিক্ষাজীবন : আলোচিত ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান অনূর্ধ্ব-১৯ জাতীয় ক্রিকেট দলে সুযোগ পেয়েছিলেন। রংপুর লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের গন্ডি পেরিয়ে ভর্তি হন রংপুর কারমাইকেল কলেজে। অনার্সে তার বিষয় ছিল ফিলোসফি। মাস্টার্সে ফিলোসফিতে ফার্স্টক্লাস পান তিনি। অনার্সে পাড়াকালীন ধর্মের দিকে ধীরে ধীরে ঝুঁকে পড়েন এই ক্রিকেটার। সদাহাস্যোজ্জ্বল ও মিশুক ছিলেন আদনান। তার বাবা মারা যাওয়ার পরে রংপুর নগরীর সেন্ট্রাল রোডে নানার বাড়িতে বড় হন তিনি। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে কোনো আরবি প্রতিষ্ঠানে না পড়লেও ইসলাম ধর্মের প্রচুর বই পড়তেন এবং গবেষণা করতেন। ফিলোসফিতে মাস্টার্স করা ছাত্র অল্প দিনেই হয়ে ওঠেন একজন ভালো ইসলামী বক্তা। তিনি ধর্মীয় উগ্রবাদকে সমর্থন করতেন না।

যেভাবে নিখোঁজ : গত ১০ জুন বিকেলে ঢাকা যাওয়ার কথা বলে রংপুরের বাসা থেকে বের হন আদনান। রাত আড়াইটার দিকে স্ত্রীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে শেষ কথা হয় তাঁর। আদনানের সঙ্গে থাকা আব্দুল মুহিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিনও নিখোঁজ। তাঁদের সবার মোবাইল ফোনও বন্ধ।

ঘটনার বিবরণ দিয়ে সাবিকুন্নাহার জানান, রংপুরের বাড়ি থেকে ওই দিন বগুড়ায় একটি ধর্মীয় সভায় যোগ দেওয়ার কথা ছিল আদনানের। এরপর ঢাকায় আসার কথা। বিকেল ৪টার দিকে রংপুর থেকে একটা কারে করে বগুড়ার উদ্দেশে বের হন তিনি। ওই গাড়িটির মালিক রংপুরের আমির উদ্দীন, তিনিই চালান। সাধারণত রংপুর থেকে ঢাকা যাতায়াতের ক্ষেত্রে আমির উদ্দীনের গাড়িটি ব্যবহার করতেন আদনান। রওনা দেওয়ার কিছুক্ষণ পরেই ফোনে আদনান জানান, দুটি মোটরসাইকেলে চারজন তার গাড়িটিকে অনুসরণ করছে। পরে হয়তো ভয়ে বা উদ্বিগ্ন হয়ে তিনি বগুড়ার সভায় যোগ না দিয়ে ঢাকার পথ ধরেন।

তার সঙ্গে আব্দুল মুহিত ও মোহাম্মদ ফিরোজ নামে যে দুজন ছিলেন তারা মূলত আদনানকে বগুড়ার সভায় নিতে এসেছিলেন। পরে পরিস্থিতি বুঝে তারা আদনানকে ঢাকা পর্যন্ত এগিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। রাত আড়াইটার দিকে তার গাড়ি গাবতলী পৌঁছেছে বলে স্ত্রীকে জানান আদনান। এরপর থেকেই আর কোনো যোগাযোগ নেই।

ত্ব-হা ফিরে পেতে স্ত্রীর আকুতি : এদিকে ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের সন্ধান চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তার স্ত্রী সাবিকুন্নাহার। বুধবার (১৬ জুন) দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটের সাগর-রুনি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে স্বামীকে ফিরিয়ে দেয়ার আবেদন জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘সে নিরীহ মানুষ, ভুল বুঝাবুঝি হতে পারে। তাকে আমার কাছে ফিরিয়ে দিন, নয়ত আমাকে তার কাছে নিয়ে যান।’

সংবাদ সম্মেলনে সাবিকুন্নাহার প্রধানমন্ত্রীসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আকুতি জানান ত্ব-হাকে খুঁজে বের করতে।

ত্বহার স্ত্রী সাবিকুন্নাহার বলেন, ‘যদি সত্যিকার অর্থে তিনি কোনো অপরাধে যুক্ত থাকেন তাহলে রাষ্ট্রীয় আইনে তার বিচার হোক। আমি কিছু বলব না।’

ক্রিকেটার, শিল্পী, রাজনীতিক ও ধর্মীয় বক্তাদের পোষ্ট : নিখোঁজ ত্ব-হাকে ফিরে পেতে পোষ্ট দিয়েছেন ক্রিকেটার, শিল্পী ও রাজনীতিকরা। আলোচিত তরুণ ইসলামী বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী তার ভেরিফায়েড ফেসবুকে লেখেন, এক সপ্তাহ হয়ে গেল। একজন তরুণ দ্বা’য়ী তার দুজন সফরসঙ্গী এবং ড্রাইভার সহ বিলকুল গায়েব। কী আজিব ঘটনা! এমনকি গাড়ীটারও সন্ধান কেউ দিতে পারছেনা। ব্যাপারটা বেশ রহস্যজনক এবং উদ্বেগের। তাদের সন্ধান পাওয়ার সম্ভাবনাও যেন— ক্ষীণ থেকে ক্ষীণতর হচ্ছে।

গুম একটি মানবতাবিরোধী অপরাধ। এটি মানবাধিকার লঙ্ঘনের চরম ও নৃশংসতম অপরাধগুলোর অন্যতম। গুম-সংস্কৃতি চূড়ান্তভাবে আইনের শাসনকে বিপন্ন করে তোলে এবং একটি রাষ্ট্রকে অকার্যকর অবস্থার দিকে নিয়ে যায়। 

গুমের মিছিল এভাবে লম্বা হতে থাকলে, আন্তর্জাতিক অঙ্গণে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরো ক্ষুন্ন হবে। তাই, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উচিত— প্রতিটি গুমের ঘটনার দ্রুত এবং নিরপেক্ষ তদন্ত নিশ্চিত করা।

মুসলিম রাষ্ট্রে একজন অমুসলিমেরও সামাজিক নিরাপত্তা রয়েছে। প্রাণ রক্ষা করা মাক্বাসিদে শারি’আর (শারি’আর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য) অন্যতম লক্ষ্য। একজন নিরপরাধ মানুষের প্রাণনাশ গোটা মানবমন্ডলীর প্রাণনাশের সমতুল্য।

রাষ্ট্র তার জনগণের মৌলিক অধিকার সুরক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তাই, রাষ্ট্রের সাংবিধানিক দায়িত্ব হচ্ছে— তাদেরকে খুঁজে বের করা। আবু ত্বহা আদনান সালামাতে ফিরে আসুক। গুম এবং হয়রানির অবসান ঘটুক।

জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড় সোহরাওয়ার্দী শুভ বলেন, একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান ও ক্রিকেটার হিসেবে ত্ব-হার নিখোঁজ হওয়ায় আমি মর্মাহত।

স্ট্যাটাসে জাতীয় দলের এই খেলোয়ার বলেন, ‘বিগত কয়েক দিনের সোশ্যাল মিডিয়ার আলোচিত ব্যক্তি ইসলামিক বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ও অনূর্ধ্ব ১৯ দলের ক্রিকেটার নিখোঁজের ঘটনায় আমি একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান এবং ক্রিকেটার হিসেবে মর্মাহত।’

শুভ আরও লেখেন, ‘আমার প্রশাসনের প্রতি দৃঢ় বিশ্বাস তারা তাদের দক্ষতা কাজে লাগিয়ে তাকে দ্রুত খুঁজে বের করে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করবে। অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করবে। আল্লাহ তার পরিবারকে ধৈর্য ধারণ করার তৌফিক দান করুন (আমিন)।’

ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং ডাকসুর সাবেক জিএস গোলাম রাব্বানী তার ভেরিফায়েড ফেসবুকে লেখেন, অত্যন্ত সাবলীল বক্তা, জনপ্রিয় তরুণ আলেম শায়েখ আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান নিঁখোজ হবার আজ পঞ্চম দিন!

তিনি বলেন, একজন প্রকৃত আলেম আমাদের দেশের সম্পদ। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার সকল সদসের প্রতি উদাত্ত আহবান, দ্রুততম সময়ে তাকে খুঁজে বের করতে সেরা এফোর্ট দিন।  সর্বস্তরের জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত হোক।

জনপ্রিয় কণ্ঠ শিল্পী আসিফ আকবর তার খোঁজে চেয়ে বলেন, আবু ত্বহা মুহাম্মদ আদনান সাহেবকে আমি চিনিনা। কখনো উনার নাম শুনিনি, এটা হয়তো আমার অজ্ঞতা। নিউজে দেখলাম তিনি একজন মেধাবী তরুন ক্রিকেটার ছিলেন। আগে গীটারও বাজাতেন টুকটাক। এক সময় ইসলামের পথে নিজেকে উজাড় করে দিয়ে একজন তরুন ইসলামী বক্তা হয়ে উঠেন। গত ছয়দিন যাবত তিনি নিখোঁজ। মিডিয়ায় আদনান সাহেবের স্ত্রী’র বক্তব্য শুনে মনটা খুব খারাপ হয়ে গেলো। একজন স্ত্রী হিসেবে ভদ্রমহিলা শুধু তার স্বামীর সন্ধান চান। আদনান সাহেব রাষ্ট্রবিরোধী কোন কাজ করে থাকলে সেটারও বিচার চান। প্রয়োজনে দেশ ছেড়ে চলে যাবার কথাও বলেছেন। 

জন্ম থেকে এসব দেখেই যাচ্ছি শুধু। আমার আর বাংলাদেশের বয়স সমান। মানুষ হারিয়ে যাওয়া অনেক কষ্টের। একটা স্বাধীন দেশে এ ধরনের অনিয়ম মানা খুবই কষ্টকর। মাঝে মধ্যে নিজেও ভাবি কখন যে উধাও হয়ে যাই। একটা সাধারন গৃহপালিত প্রানী হারিয়ে গেলেও অনেক এলোমেলো হয়ে যায় মন। সেখানে জ্বলজ্যান্ত মানুষ হারিয়ে গেলে পরিবারের যন্ত্রনা কি হতে পারে সেটা সহজেই অনুমেয়। আধুনিক প্রযুক্তির যুগে এ ধরনের নিখোঁজ হওয়া ভিকটিমদের ব্যাপারে দেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী যথেষ্ট স্মার্ট। আশা করি প্রশাসন আবু ত্বহা মুহাম্মদ আদনানের সন্ধান পাবেন এবং তিনিও তার পরিবারে কাছে ফিরে যেতে পারবেন। 

একজন খেলোয়াড় ও সঙ্গীতপ্রেমী সব জাগতিক খায়েস ছেড়ে ইসলামের খেদমতে নিজের জীবন উৎস্বর্গ করেছেন। সংস্কৃতিমনা মানুষ যত কিছুই করুক না কেন কখনো নৃশংস হতে পারেনা, মানুষ খুন করতে পারেনা। শুধু আদনান সাহেব নয়, এই ধরনের ঘটনা যেন কখনোই না ঘটে সে বিষয়ে সামাজিক রাজনৈতিক এবং রাষ্ট্রীয় সচেতনতা খুব প্রয়োজন। আবু ত্বহা মুহাম্মদ আদনান এবং তাঁর নিখোঁজ সঙ্গীরা সহিসালামত আমাদের মাঝে ফিরে আসুন, এই দোয়া করি, রাষ্ট্রের কাছেও দাবী রইলো। মহান আল্লাহ তাদের পরিবারকে ধৈর্য্য ধরার শক্তি দিন। আমীন…

সারা দেশে মানববন্ধন : দেশের আলোচিত ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানসহ তার তিন সঙ্গীর সন্ধানের দাবিতে দেশের জেলায় জেলায় মানববন্ধন হয়েছে। 

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, তরুণ ও মেধাবী ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানসহ তার সফরসঙ্গী আব্দুল মুকিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন ফয়েজ নিখোঁজ রয়েছেন। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এখন পর্যন্ত কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

সোনালীনিউজ/এমএএইচ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Dutch Bangla Bank Agent Banking
Wordbridge School