• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট, ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯

বিদেশি ঋণ ৮শ’ কোটি ডলার ছাড়ালো


নিজস্ব প্রতিবেদক জুন ২৩, ২০২২, ০৯:২৩ পিএম
বিদেশি ঋণ ৮শ’ কোটি ডলার ছাড়ালো

ঢাকা: মহামারীর পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক মন্দা এবং নানান অনিশ্চয়তার মাঝেও ৮শ’ কোটি বা ৮ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক ছাড়িয়েছে বিদেশি ঋণসহায়তা। বিদেশি ঋণসহায়তা প্রাপ্তিতে বাংলাদেশ রেকর্ড গড়েছে। 

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের ১১ মাসে অর্থাৎ জুলাই-মে পর্যন্ত বিভিন্ন দাতাদেশ ও সংস্থার কাছ থেকে ৮৪১ কোটি ৬০ লাখ (৮.৪১ বিলিয়ন) ডলারের ঋণসহায়তা পেয়েছে বলে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) জানিয়েছে। 

ইআরডির তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, দেশের ইতিহাসে এর আগে কোনো অর্থবছরের পুরো সময়েও (১২ মাস) এত বেশি বিদেশি ঋণসহায়তা আসেনি। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ৭১০ কোটি (৭.১ বিলিয়ন) ডলার ঋণসহায়তা পেয়েছিল বাংলাদেশ। আর ২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বিদেশি ঋণ আসে বাংলাদেশে। ওই বছর ৭৩৮ কোটি (৭.৩৮ বিলিয়ন) ডলার ঋণ পাওয়া গিয়েছিল। তারপর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আসে ৬৫৪ কোটি ডলার।

ইআরডি বিদেশি ঋণসহায়তার প্রতিশ্রুতি ও ছাড়ের হালনাগাদ যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই থেকে মে পর্যন্ত বাংলাদেশকে ৫৯১ কোটি (৫.৯১ বিলিয়ন) ডলার ছাড় করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল দাতারা। পাওয়া গেছে ৮৪১ কোটি ৬০ লাখ ডলার। এ হিসাবে এই ১০ মাসে দাতারা বাংলাদেশকে যে ঋণ দিতে চেয়েছিল তার থেকেও ৪২ দশমিক ৪০ শতাংশ বেশি ছাড় করেছে। ছাড় করা ঋণের মধ্যে ৮২২ কোটি ৭৫ লাখ ডলার পাওয়া গেছে প্রকল্প সাহায্য হিসেবে। ১৮ কোটি ৮৫ লাখ ৪০ হাজার ডলার পাওয়া গেছে অনুদান। এর মধ্যে ২৫ লাখ ৩০ হাজার ডলার খাদ্য অনুদান এবং ১৮ কোটি ৬০ লাখ ১০ হাজার ডলার প্রকল্প অনুদান হিসেবে পাওয়া গেছে। 

২০২০-২১ অর্থবছরের জুলাই-মে সময়ে ৫৭২ কোটি ৬০ লাখ ৭০ হাজার ডলার ছাড় করেছিল দাতারা। সে হিসাবেই এই ১০ মাসে বিদেশি ঋণসহায়তা বেড়েছে ৪৭ শতাংশ।

ইআরডির তথ্য বলছে, ২০২০-২১ অর্থবছরের জুলাই-মে সময়ে ৫৩৬ কোটি ২৭ লাখ ডলারের ঋণসহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল দাতারা। চলতি অর্থবছরের একই সময়ে সেই প্রতিশ্রুতির চেয়ে ১০ দশমিক ২০ শতাংশ বাড়িয়ে ৫৯১ কোটি ডলার করেছে। আর এই ১১ মাস আগে নেয়া ঋণের আসল ও সুদ পরিশোধের পরিমাণ বেড়েছে ১০ শতাংশ। এ সময়ে সরকার আসল ও সুদ মিলে উন্নয়ন সহযোগীদের ১৮৮ কোটি ৬৭ লাখ ডলার শোধ করেছে। গত অর্থবছরে একই সময়ে এই অঙ্ক ছিল ১৭১ কোটি ৫৬ লাখ ডলার।

সোনালীনিউজ/এসআই/আইএ

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System