• ঢাকা
  • সোমবার, ২১ জুন, ২০২১, ৮ আষাঢ় ১৪২৮
abc constructions
বন্ধ হতে পারে লিন্ডের ২ প্ল্যান্ট ও ভারত থেকে আমদানি

অক্সিজেন সংকটের আশঙ্কা


নিউজ ডেস্ক এপ্রিল ২২, ২০২১, ১০:০৭ এএম
অক্সিজেন সংকটের আশঙ্কা

ফাইল ছবি

ঢাকা : দেশে যেকোনো সময় অক্সিজেনের ভয়াবহ সংকট সৃষ্টি হতে পারে। বন্ধ হয়ে যেতে পারে মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেনের মূল জোগানদাতা লিন্ডের দুটি প্ল্যান্ট। পাশাপাশি করোনা পরিস্থিতিতে ভারতে অক্সিজেনের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় দেশটি অক্সিজেন রপ্তানি বন্ধ করে দিতে পারে।

এসব আশঙ্কা বাস্তবে রূপ নিলে চলমান করোনা সংক্রমণে প্রতিদিন যে পরিমাণ অক্সিজেনের প্রয়োজন তার চার ভাগের এক ভাগও সরবরাহ করা সম্ভব হবে না। ভয়াবহ সমস্যায় পড়তে পারেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কোভিড রোগীরা। সম্প্রতি অক্সিজেন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দেশে বর্তমানে অক্সিজেনের চাহিদা ১৫০ টন। এর মধ্যে লিন্ডে ও স্পেক্টা সরবরাহ করছে যথাক্রমে ৮০ টন এবং স্পেক্ট্রা ৩৮ টন। সম মিলিয়ে ১১৮ টন। কিন্তু লিন্ডের দুটি ইউনিট যেকোনো সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে। সেজন্য অধিদপ্তর ৩টি নতুন উৎসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। এসব উৎস থেকে পাওয়া যাবে মোট ৭৫ টন। তবে বর্তমানে এই তিনটি প্রতিষ্ঠান মাত্র ৩৫ টন অক্সিজেন দিতে পারবে বলে জানিয়েছে। এর মধ্যে আবুল খায়ের স্টিল মেল্টিং লি. দৈনিক ৭ টন, ইসলাম অক্সিজেন ২০ টন এবং এ কে অক্সিজেন লি. ৮ টন সরবরাহ করতে পারবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কোভিড পরিস্থিতির আগে দেশে দৈনিক ১০০ টন মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেনের চাহিদা ছিল। কোভিড রোগীদের সংখ্যা বাড়ায় হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলা, ভেন্টিলেটর ও আইসিইউর চাহিদা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় অক্সিজেনের চাহিদা বাড়ছে, যা বর্তমানে ১৫০ টনে পৌঁছেছে। এই চাহিদা আরও বাড়তে পারে। সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে পরিচালক হাসপাতাল, লাইন ডিরেক্টর হাসপাতাল ও একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তার সঙ্গে অক্সিজেন সরবরাহকারী কোম্পানিগুলোর প্রতিনিধিরা আলোচনা করেন। সেখানে তারা তাদের সামগ্রিক অবস্থা তুলে ধরেন।

সেই সভায় জানানো হয়, লিন্ডে বাংলাদেশ দেশের সব সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের বড় অংশ সরবরাহ করে থাকে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জে অবস্থিত প্ল্যান্ট থেকে ৬০ টন এবং চট্টগ্রামে অবস্থিত প্ল্যান্ট থেকে ২০ টন অক্সিজেন উৎপাদন করে। ২০২০-এর ১১ ডিসেম্বর লিন্ডের নারায়ণগঞ্জে অবস্থিত প্ল্যান্টের কম্প্রেসারের মোটর পুড়ে যায়। ফলে অক্সিজেন উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমানে এই কারখানা চালু আছে। অন্যদিকে চট্টগ্রামের প্ল্যান্ট যেকোনো সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে তারা জানিয়েছে। গত ৩ থেকে ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই প্ল্যান্ট বন্ধ ছিল।

অন্যদিকে স্পেক্ট্রা অক্সিজেন লি. প্রতিদিন ৩৮ টন অক্সিজেন সরবরাহ করছে। তারা স্থানীয়ভাবে ২০ টন এবং ভারত থেকে ১৮ টন আমদানি করছে। সেখানে আরও বলা হয়, ভারত থেকে লিকুইড অক্সিজেন আনা সময়সাপেক্ষ হওয়ায় এবং সাপ্তাহিক ছুটির দিনে পরিবহণ বন্ধ থাকায় অক্সিজেনের সংকট তৈরি হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এ ছাড়া লিন্ডের দুটি প্ল্যান্টই যেকোনো মুহূর্তে বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম বলেন, অক্সিজেনের চাহিদা নিশ্চিত করতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। এখন পর্যন্ত চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে। আশা করছি, কোনো বড় ধরনের সংকট হবে না।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) ডা. ফরিদ হোসেন মিঞা বলেন, দেশের বর্তমান অক্সিজেন চাহিদা মেটাতে স্থানীয়ভাবে দুটি কোম্পানি উৎপাদন করছে। পাশাপাশি ভারত থেকে তরলীকৃত অক্সিজেন আমদানি করা হচ্ছে। কিন্তু ভারতে অক্সিজেনের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় রপ্তানি বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

তিনি বলেন, ভারত যদি অক্সিজেন রপ্তানি বন্ধ করে দেয়, তাহলে আমাদের হাসপাতালগুলোয় অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দেবে। সেই ঘটতি পূরণে আমরা তিনটি অক্সিজেন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনা করেছি। কিন্তু তাদের তরল অক্সিজেন উৎপাদনের সক্ষমতা অনেক কম, যা দিয়ে ঘটতি পূরণ করা সম্ভব হবে না। সেরকম পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে কী করবেন-জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রাপ্ত অক্সিজেনের সুসম বণ্টন নিশ্চিত করা হবে।

সূত্র জানায়, বিদ্যমান পরিস্থিতিতে নতুন উৎস খুঁজতে শুরু করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। নতুন উৎস হিসাবে যে তিনটি কোম্পানির সঙ্গে অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয়েছে সেগুলো হলো : আবুল খায়ের স্টিল মেল্টিং লি., সীতাকুণ্ড, যাদের দৈনিক মোট উৎপাদনক্ষমতা ২৫০ টন। তবে তরলীকৃত অক্সিজেন উৎপাদনের ক্ষমতা মাত্রা ১৫ টন। প্রতিষ্ঠানটি মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেন বিক্রির সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। তবে কোভিড পরিস্থিতি বিবেচনা করে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর তাদের সাময়িক অনুমোদন দিয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের ইসলাম অক্সিজেন। যাদের দৈনিক উৎপাদনক্ষমতা ৭০ টন। যার মধ্যে তরলীকৃত অক্সিজেনের পরিমাণ ৪০ টন। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জের এ কে অক্সিজেন (প্রা.) লিমিটেড। যারা দৈনিক ২০ টন তরল অক্সিজেন উৎপাদনে সক্ষম। এই দুটি প্রতিষ্ঠানও ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের অনুমোদন প্রাপ্ত।

প্রতিদিন যেভাবে করোনা সংক্রমণের পাশাপাশি অক্সিজেনের চাহিদা বাড়ছে তাতে সার্বিক চিকিৎসা পরিস্থিতি অবনতি ঘটার শঙ্কা রয়েছে। এমনকি প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সুবিধা দিতে না-পারলে অনেক মুমূর্ষু রোগী মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে পারে। এমন তথ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, দেশে কোভিড চিকিৎসা দেয় (সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে) এমন হাসপাতালগুলোয় ১০৩৭টি হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা রয়েছে। শুধু এই হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলাগুলোর মাধ্যমে প্রতিদিন মুমূর্ষু রোগীদের জন্য ৬৪ মিলিয়ন লিটার অক্সিজেন সরবরাহ করতে হয়। এ ছাড়া আইসিইউতে (ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট-নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র) চিকিৎসাধীন রোগীদের অক্সিজেন সাপোর্টে রাখতে হয়।

পাশাপাশি সাধারণ শয্যায় চিকিৎসাধীন অনেক রোগীরও অক্সিজেনের প্রয়োজন পড়ে। এর পাশাপাশি সারা দেশে সাধারণ হাসপাতালে (যেগুলোয় নন-কোভিড রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হয়) প্রতিদিন কয়েক হাজার রোগীর অস্ত্রোপচার হয়ে থাকে। তাদেরও অক্সিজেনের প্রয়োজন হয়। এমনকি দেশে করোনা মহামারি শুরুর পর থেকে অবস্থাপন্ন অনেক ব্যক্তি ও পরিবার বাসাবাড়িতে অক্সিজেন সিলিন্ডার রাখতে শুরু করেছেন।

সভায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অক্সিজেন উৎপাদন ও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান দুটির প্রতিনিধিদের কাছে এই সংকটের সমাধান জানতে চায়। এ সময় লিন্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়, তারা একটি নতুন অক্সিজেন প্ল্যান্ট করার প্রস্তাব দিয়েছে, যা অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। সরকারের অনুমোদন পেলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্ল্যান্টটি করতে কমপক্ষে নয় মাস সময় লাগবে। তবে নারায়ণগঞ্জে তাদের একটি ট্যাংক রয়েছে যেটিতে ৯ টন অক্সিজেন মজুত রাখা সম্ভব। বর্তমান ঘাটতি মেটাতে তারা লিন্ডে ইন্ডিয়ার কাছ থেকে প্রতি সপ্তাহে ৫০-৮০ টন অক্সিজেন আনছে। যে ট্যাংকারের মাধ্যমে অক্সিজেন আনা হয় তার প্রতিটির ধারণক্ষমতা সাড়ে ৪ থেকে ১৪ টন।

তবে এভাবে কতদিন অক্সিজেন আনা সম্ভব হবে, সে বিষয়ে সন্দিহান সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তারা বলেন, ইতোমধ্যে ভারতের মহারাষ্ট্র সরকার রাজ্যের বাইরে অক্সিজেন সরবরাহ ও পরিবহণ বন্ধ করে দিয়েছে। বাংলাদেশে অক্সিজেন আনা হয় পশ্চিমবঙ্গ থেকে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার যদি অক্সিজেন পরিবহণ ও সরবরাহ বন্ধ ঘোষণা করে, তাহলে পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। এমনকি হাসপাতালগুলোয় চাহিদা অনুসারে অক্সিজেন সরবরাহ করতে না-পারলে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে যাওয়া অস্বাভাবিক নয়।

এ বিষয়ে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. জাহিদুর রহমান বলেন, অধিকাংশ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর মৃদু বা মাঝারি লক্ষণ প্রকাশ পায়। খুব অল্পসংখ্যক মানুষের হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার দরকার হয়। পর্যাপ্ত হাইফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই থাকলে তাদের মধ্য থেকেও একেবারে হাতে গোনা দু-একজনের আইসিইউ সুবিধার প্রয়োজন হয়।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে রোগীরা আইসিইউতে আসার আগপর্যন্ত যে চিকিৎসা, সেটি পাচ্ছেন না। ফলে আইসিইউর চাহিদা বাড়ছে। সুতরাং এই মুহূর্তে আইসিইউ শয্যা বৃদ্ধি করার চেয়েও জরুরি জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ের সরকারি হাসপাতালগুলোয় কেন্দ্রীয়ভাবে অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা করা। তবে এক বছর সময় পাওয়ার পরও সরকারি হাসপাতালগুলোয় হাইফ্লো অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি। এ বিষয়গুলো গুরুত্বসহকারে দেখতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, দেশে বর্তমানে সারা দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন পাঁচ হাজার ৮৪ জন। এর মধ্যে শুধু ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন তিন হাজার ২২৩ জন। একইসঙ্গে আইসিইউতে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন ২৯৪ জন। এ ছাড়া আরও অনেকের আইসিইউর প্রয়োজন থাকলে শয্যার অভাবে তাদের আইসিইউতে নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। সুত্র : যুগান্তর

সোনালীনিউজ/এমএএইচ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School