• ঢাকা
  • রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

রাজনীতির মাঠে সাকিব, বিসিবিতে তামিম


ক্রীড়া ডেস্ক নভেম্বর ২৬, ২০২৩, ০২:৪৫ পিএম
রাজনীতির মাঠে সাকিব, বিসিবিতে তামিম

ঢাকা: বিশ্বকাপের ব্যর্থ মিশন শেষ করে সপ্তাহ খানেক আগেই দেশে ফিরেছেন সাকিব আল হাসান। তবে বিশ্ব আসরের ব্যর্থতা ভুলে এবার রাজনীতির মাঠে নামলেন তিন ফরম্যাটের বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন ফরম কিনেছেন তারকা এই ক্রিকেটার।

একটি নয়, সাকিবের পক্ষে মোট তিনটি আসনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করা হয়েছে। এগুলো হলো- গুরুত্বপূর্ণ ঢাকা–১০ আসন এবং সাকিবের নিজ জেলা মাগুরা-১ ও মাগুরা-২ আসন। মাগুরা-১ আসনের ভোটারও তিনি। 

ক্রীড়াঙ্গনের তারকাদের রাজনীতিতে আসা নতুন কিছু নয়। স্বয়ং বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও একজন সাংসদ। সাবেক দুই অধিনায়ক নাইমুর রহমান দূর্জয় ও বাংলাদেশের অন্যতম সেরা (সাবেক) অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তূজাও রানিং সাংসদ। তবে ক্রিকেটে যেমন জনপ্রিয় তেমনি রাজনীতিতেও। নড়াইল-২ আসন থেকে তিনি নির্বাচিত। সাকিব কি পারবেন মাশরাফির মতো জনপ্রিয় হতে? 

মাশরাফি খেলার মাঠে বাকি ১০ সদস্যকে যেভাবে নেতৃত্ব দিতেন তা অতুলনীয়। খোঁদ তার সতীর্থরাই মাশরাফির নেতৃত্ব গুণের দারুণ প্রশংসা করেন। আর তাইতো ম্যাশ বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা জনপ্রিয় অধিনায়ক। মাশরাফি রাজনীতির মাঠেও তাই। প্রায়ই তার রাজনীতির ভিডিওতে দেখা যায় তিনি এলাকার মানুষের কাছে যান, কথা বলেন। দুঃখ-দূর্দশা, সমস্যার খোঁজ নিয়ে সমাধানের চেষ্টা করেন। 

মাশরাফির মতো সাকিবও বাংলাদেশের অধিনায়ক ও জনপ্রিয় ক্রিকেটার। কিন্তু, দলের নেতৃত্বের জায়গায় সাকিব ততটা আলোচিত নন যতটা তিনি একজন ক্রিকেটার হিসেবে আলোচিত ও সম্মানিত। সাকিব কি পারবেন মাশরাফির মতো মাটি ও মানুষের সাথে মিশে নিজেকে সেই জায়গায় নিয়ে যেতে? মানুষের সেবা করে পাশে থাকতে? সাকিবীয় চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য ভেঙে হয়তো সেই জায়গায় যাওয়াটা কঠিন তবে অসম্ভব কিছু নয়। কারণ, এই কথাটি একবার সাকিবই বলেছিলেন, যিনি পারেন তিনি সব পারেন।

এদিকে সাকিব যখন রাজনীতির মাঠ নিয়ে ব্যস্ত তখন বিসিবিতে গেলেন তামিম ইকবাল। বাংলাদেশ ও নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে আলাপ করতেই পাপনের সাথে বৈঠকে বসছেন তামিম।

রোববার (২৬ নভেম্বর) বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে বৈঠকের কথা রয়েছে তামিমের। দুজনের এ বৈঠকে তামিম নিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে পাপনকে অবহিত করবেন বলে জানা গেছে। তামিম-পাপনের সঙ্গে সেখানে বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনূসও থাকবেন বলে সূত্র থেকে জানা গেছে। তবে বৈঠক শুরুর সময় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এদিকে বিশ্বকাপের পর ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। ২৮ নভেম্বর থেকে শুরু হবে কিউইদের বিপক্ষে এ সিরিজ। তবে সাদা পোশাকের এই সিরিজেও বাংলাদেশ দলে নেই তামিম। এমনকি পরে কিউইদের মাটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া অ্যাওয়ে সিরিজেও থাকবেন না তামিম। সবমিলিয়ে তামিমের ক্রিকেট ক্যারিয়ারের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

বাংলাদেশের জার্সিতে তামিম সবশেষ মাঠে নেমেছিলেন বিশ্বকাপের আগে ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজেই। পিঠের চোটের জন্য ইনজেকশন নেয়ার পর কিউইদের বিপক্ষে সেই সিরিজটি ছিল দেশসেরা ওপেনারের মাঠে ফেরার লড়াই। এরপরই বিশ্বকাপে অংশ নেয়ার কথা ছিল তার। তবে শেষ পর্যন্ত আর টুর্নামেন্টের জন্য টাইগারদের দলে জায়গা হয়নি তার।

অন্যদিকে, ধারণা করা হচ্ছে ২০২৪ সালের বিপিএল দিয়ে আবারও ২২ গজে প্রত্যাবর্তন করবেন তামিম। বিপিএলে তার দল ফরচুন বরিশালও তাকে নিয়ে বেশ আশাবাদী। কয়েকদিন আগেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন তামিম। যদিও সেখানে কী বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, তা নিয়ে বিস্তারিত জানা যায়নি। ফেসবুক পোস্টে তামিম লিখেছিলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করাটা সবসময় আনন্দের।’

এআর

Wordbridge School
Link copied!