• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১

সূর্যগ্রহণকালে গাড়ি দুর্ঘটনায় সহস্রাধিক মৃত্যুর আশঙ্কা, সতর্কতা জারি


আন্তর্জাতিক ডেস্ক মার্চ ২৮, ২০২৪, ০১:৩১ পিএম
সূর্যগ্রহণকালে গাড়ি দুর্ঘটনায় সহস্রাধিক মৃত্যুর আশঙ্কা, সতর্কতা জারি

ঢাকা : আর কয়েকদিন পরই বিরল পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ। আর এই সূর্যগ্রহণ পর্যবেক্ষণ করতে এরই মধ্যে দেশে দেশে শুরু হয়ে গেছে প্রস্তুতি। তবে বিষয়টি নিয়ে সতর্ক করেছেন গবেষকরা। বলা হচ্ছে, সূর্যগ্রহণকালে গাড়ি দুর্ঘটনায় সহস্রাধিক মৃত্যু ঘটতে পারে।

আগামী ৮ এপ্রিল বিরল সূর্যগ্রহণের সাক্ষী হতে যাচ্ছে বিশ্ব। তবে পৃথিবীর সব অঞ্চল থেকে পূর্ণগ্রাস এই সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে না বলে এরই মধ্যে জানিয়েছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা।

ফলে যে সব এলাকা থেকে ভালভাবে সূর্যগ্রহণ পর্যবেক্ষণ করা যাবে সেসব এলাকায় ভ্রমণ করবে মানুষ। এর ফলে গাড়ি দুর্ঘটনা বাড়বে। গবেষকরা সতর্ক করেছেন, সূর্যগ্রহণ দেখতে গিয়ে স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় গাড়ি দুর্ঘটনায় মৃত্যু ৫০ শতাংশ বাড়তে পারে।

ডেইলি মেইলের প্রতিবেদন মতে, কানাডার ইউনিভার্সিটি অব টরোন্টের একদল গবেষক ২০১৭ সালের সূর্যগ্রহণের সময়ের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে বলেছেন, সূর্যগ্রহণের তিন দিন আগে এবং তিন দিন পরে শুধু যুক্তরাষ্ট্রেই গাড়ি দুর্ঘটনায় সহস্রাধিক মৃত্যু ঘটতে পারে।

গবেষকরা জানান, যুক্তরাষ্ট্রে এখন প্রতিদিন গাড়ি দুর্ঘটনায় ১১৪টি মৃত্যু ঘটে। এখন থেকে সাত বছর আগে (২০১৭) সূর্যগ্রহণের সময় দৈনিক ১৮৯টি মৃত্যু ঘটেছিল। যা স্বভাবিক সময়ের চেয়ে অন্তত ৩১ শতাংশ বেশি।

স্বাভাবিকের চেয়ে অতিরিক্ত গাড়িই এসব দুর্ঘটনার প্রধান কারণ। সূর্যগ্রহণের সময় লাখ লাখ মানুষ রাস্তায় নেমে আসে। আর তারা যেসব এলাকায় ভালভাবে সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে সেসব এলাকায় যাওয়ার চেষ্টা করে।

প্রতিবেদন মতে, যুক্তরাষ্ট্রে এবার প্রায় ৩৭ লাখ মানুষ সূর্যগ্রহণ দেখার জন্য রাস্তায় নামবে। আর এ কারণেই গাড়ি দুর্ঘটনায় মৃত্যু ৫০ শতাংশ বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জানা গেছে, বিরল পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণের কারণে ৮ এপ্রিল মেক্সিকো, যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় সূর্যকে পুরোপুরি ঢেকে ফেলবে চাঁদ। ফলে দিন হবে রাতের মতো অন্ধকার। এ অবস্থায়, যুক্তরাষ্ট্রে সেদিন শত শত স্কুল বন্ধ হতে যাচ্ছে।

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা বলছে, আগামী ৮ এপ্রিল স্থানীয় সময় বেলা ১১টা ৭ মিনিটে মেক্সিকোর প্রশান্ত মহাসাগরীয় উপকূলে প্রথম সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে।

৫৪ বছর পর এমন সূর্যগ্রহণ হওয়ায়, নাসার বিজ্ঞানীরা এই সূর্যগ্রহণকে ‘বিশেষ’ বলে বর্ণনা করেছেন। এর আগে ১৯৭০ সালে এমন সূর্যগ্রহণ হয়েছিল, আবার হতে পারে ২০৭৮ সালে।

তবে বিরল এই সূর্যগ্রহণ নিয়ে কিছু উদ্বেগও রয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সতর্ক করে বলেছে, সূর্যগ্রহণের সময় সরাসরি সূর্যের দিকে তাকানোর ফলে চোখের স্থায়ী ক্ষতি হতে পারে।

বলা হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস, ওকলাহোমা, আরকানসাস, মিসৌরি, ইলিনয়, কেনটাকি, ইন্ডিয়ানা, ওহাইও, পেনসিলভানিয়া, নিউইয়র্ক, ভার্মন্ট, নিউ হ্যাম্পশায়ার এবং মেইন অঙ্গরাজ্য থেকে পূর্ণগ্রাস এই সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। ফলে এসব রাজ্যেই বন্ধ হতে যাচ্ছে স্কুল।

তবে সূর্যগ্রহণ ঘিরে টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ‘দুর্যোগ অবস্থা’ ঘোষণা করা হয়েছে। বাসিন্দাদের প্রয়োজনীয় পণ্য মজুত রাখারও পরামর্শ দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। এদিন চলাচলের সময় ব্যবহারের জন্য শিক্ষার্থীদের বিশেষ চশমাও দেয়া হবে।

এমটিআই

Wordbridge School
Link copied!