• ঢাকা
  • বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১

অসুস্থ রোগীকে সারারাত না খাইয়ে রাখল কেএফসি!


স্টাফ রিপোর্টার: মে ১৬, ২০২৪, ০৭:৪৩ পিএম
অসুস্থ রোগীকে সারারাত না খাইয়ে রাখল কেএফসি!

ঢাকা: খাবারের অর্ডার নিয়েও তা সরবরাহ না করার অভিযোগ উঠেছে কেএফসি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। মার্কিন ফাস্ট ফুড প্রতিষ্ঠান কেন্টাকি ফ্রাইড চিকেনের (কেএফসি) প্রতি সোমবারের ৯৯৯ টাকার অফারটি বেশ জনপ্রিয় হয়েছে ভোজন রসিকদের কাছে। কিন্তু অনেকের অভিযোগ, ক্যাশ অন ডেলিভারির এই অফারে প্রতিষ্ঠানটির অ্যাপস থেকে ২০ পিস চিকেন অর্ডার করলে পরে সেখানে ডেলিভারি দেখালেও খাবার দেওয়া হয় না।

এমন অভিযোগের সত্যতাও পাওয়া গেল এবার। 

গত ১৪ মে (সোমবার) কেএফসির অফিসিয়াল অ্যাপসে বেইলি রোডের আউটলেট থেকে সন্ধ্যা ৭:২২ মিনিটে ক্যাশ অন ডেলিভারিতে অর্ডার করেন এক সাংবাদিক। সেখানে ৩০ মিনিট পর ডেলিভারি গ্রহণ করা হয়। অর্ডার নং - ৪৫৬৯১৯।কিন্তু রাত ১২ টার দিকেও খাবার না আসায় অ্যাপসে প্রবেশ করে দেখা যায়, ২০ পিস এর চিকেন ডেলিভারি দেওয়া হয়েছে। অথচ খাবার হাতে পাননি গ্রাহক।

এবিষয়ে ফেসবুকে কেএফসির অফিশিয়াল পেজে অভিযোগ করলে প্রথমে তারা গুরুত্ব দেয়নি। পরে ভোক্তা অধিকারে অভিযোগ জানানোর ভয় দেখালে কেএফসি নড়েচড়ে বসে। ক্ষমা চেয়ে পুণরায় খাবার পাঠানোর আশ্বাস দেওয়া হয়। ততক্ষণে পরেরদিন দুপুর গড়িয়ে বিকেল। 

খাবার অর্ডার করা ভুক্তভোগী সেই সাংবাদিকের ভাষ্য, এর আগেও ২০ পিস অর্ডারে ২ ঘন্টা সময় লাগালেও খাবার পৌঁছেছে। কিন্তু এবার কেএফসি এমনটা কেন করল?

তিনি বলেন, সারাদেশে যখন কোকাকোলা আর কেএফসির উপর মানুষ আস্থা হারিয়ে ফেলছে তখন গ্রাহকদের সঙ্গে এমন প্রতারণা করা তাদের ঠিক হয়নি। দুইদিন ধরে অসুস্থতার পর যদি খাবারের আশায় কেএফসিতে অর্ডার করে সারারাত না খেয়ে থাকতে হয় সেটা আসলেই দুঃখজনক। একজন গ্রাহকের সঙ্গে এমনটি তারা কেন করবে? তাদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে ভোক্তা অধিকার আইনে শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।এর আগেও তাদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ শুনেছি। এবার তার প্রমাণ পেলাম। 

গ্রাহকের এমন অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেছেন কেএফসি বেইলি রোড শাখার সিফট ম্যানেজার রেজাউল ইসলাম। তিনি বলেন, সচরাচর এরকম হয় না তবে ওই গ্রাহকের ক্ষেত্রে এমনটি হয়েছে, সেজন্য আমরা দুঃখ প্রকাশ করেছি। 

এএন/আইএ

Wordbridge School
Link copied!