• ঢাকা
  • সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮
abc constructions

‘আমার প্রশ্ন হলো মিউজিক ডিরেক্টররা যাবে কই?’


শব্দনীল আগস্ট ১২, ২০২১, ০৮:৩৯ পিএম
‘আমার প্রশ্ন হলো মিউজিক ডিরেক্টররা যাবে কই?’

ছবি : সুরকার, কণ্ঠশিল্পী, সংগীত পরিচালক তাসনুভ নাওয়াল রহমান।

ঢাকা : তাসনুভ নাওয়াল রহমান। তিনি একজন প্রকৌশলী ও সংগীত পরিচালক। গানের হাতেখড়ি মা এবং ওস্তাদ নিয়াজ মোহাম্মদ চৌধুরীর কাছে নিয়েছেন তালিম। ২০০৬ সালে নেসক্যাফে ক্যাম্পাস স্টার প্রতিযোগিতায় শ্রেষ্ঠ শিল্পী হয়ে সংগীতাঙ্গনে যাত্রা শুরু করেন। সংগীত নিয়ে ভালবাসার তাগিদে ডিপ্লোমাও শর্ট কোর্সও করেছেন যুক্তরাষ্ট্র ও থাইল্যান্ড থেকে। বাপ্পা মজুমদার এবং নিজের মিলিত সংগীতায়োজনে প্রথম সলো অ্যালবাম ‘তাসনুভের গান’ প্রকাশ করেন জি সিরিজ থেকে ২০১১ সালে। এরপর একে একে ‘রহমান ব্রাদারস’, ওয়াই আর মিউজিক থেকে ‘ইন্ট্রোডাকশন অফ পাগল’ ও ঈগল মিউজিক থেকে ‘বিরহ আমার’ অ্যালবাম প্রকাশ হয় তার। এছাড়াও ‘স্বপ্নভেলা’ ও ‘উষ্ণতা’ নামের দুটো মিক্স অ্যালবামেও কাজ করেছেন। তিনি কাজ করেছেন কুমার বিশ্বজিৎ, কণা, লিজা, মিনার, মাহতিম শাকিব, ঐশীর মত শিল্পীদের সঙ্গেও।
  
এছাড়া প্লেব্যাক ও ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, টিভিসি জিংগেল ও এনজিও ভিত্তিক ডকুমেন্টারির ডাবিং করে ব্যস্ত সময় পার করছেন। সম্প্রতি এই সুরকার, কণ্ঠশিল্পী, সংগীত পরিচালক তার বিভিন্ন কাজ নিয়ে মুখোমুখি হয়েছেন সোনালী নিউজ-এর সঙ্গে। 


সোনালী নিউজ : প্রকৌশলী নাকি সংগীত পরিচালক কোন পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন-

তাসনুভ নাওয়াল রহমান : অবশ্যই সঙ্গীত পরিচালক কারণ প্রকৌশলী হতে হলে যে ধাপগুলোর প্রয়োজন হয় তা আমাদের দেশে খুব সহজে পাওয়া যায়। দেখুন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ধাপগুলো পার করতে পারলেই আপনি প্রকৌশলী হতে পারবেন কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য আমাদের দেশে সংগীত পরিচালক হওয়ার কোনও নির্দিষ্ট শিক্ষা বা সিলেবাস নেই। এজন্য এই শিক্ষাটিকে আমাদের দেশে বা ভারতীয় উপমহাদেশে বলা হয় গুরুমুখী শিক্ষা। যেহেতু গুরুর মুখে মুখে শিক্ষাটি চলে আসছে সেহেতু এর আলাদা কোনও শিক্ষা বা সিলেবাস নাই। যেজন্য এটা শিখতে গেলে নিজেকে অনেক কষ্ট করতে হয়, নিজের চর্চা, নিজেকে অনেক পড়াশুনা করতে হয় এবং ত্যাগ শিকার করতে হয়। সম্পূর্ণ আপনার আগ্রহের উপর নির্ভর করে কারণ এখানে সাফল্য পাওয়া একটু কঠিন তবে একবার আপনার লক্ষে পৌঁছাতে পারলে অনেক কিছু পাবেন। যা বলে প্রকাশ করা অসম্ভব।

আগ্রহের কথা বলছি কারণ, শিল্প-সাহিত্য বা ক্রিয়েটিভনেস কিছু সৃষ্টিকর্তার প্রদত্ত হয় এবং সঙ্গে কিছু হলেও মেধা। যা সকলেরই থাকে কিছু না কিছু। সত্য বলতে কি, এই দু’ট বিষয় অনেক মানুষের ভেতর থাকলেও আরও দু’টি বিষয়ের জন্য কিছুই করতে পারে না। আমি অনেককে দেখেছি যার ভেতরে সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত সৃজনশীলতা এবং মেধা আছে কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য তাদের ঝড়ে যেতেও দেখেছি খুব দ্রুত। শুধুমাত্র দু’টি বিষয়ের জন্য। প্রথমতও পড়াশুনা করা এবং ধৈর্য ধরে চর্চা করে যাওয়া। প্রথম দু’টি বিষয় একটু কম হলেও সমস্যা নাই কিন্তু শেষ দু’টির প্রয়োজন অনেক। না হলে আপনি টিকে থাকতে পারবেন না, যত বেশি জানার এবং চর্চার আগ্রহ থাকবে তত আপনি নিজেকে উপরের দিকে নিতে পারবেন এবং ভিন্ন ভাবে নিজের কাজকে উপস্থাপন করতে পারবেন। এইটা শুধু মাত্র এই ক্ষেত্রের জন্য প্রযোজ্য তা নয় সকল ক্ষেত্রের জন্য বলছি।

সোনালী নিউজ : আপনার সঙ্গীতের প্রতি ভালোবাসা তৈরি হওয়ার গল্প শুনতে চাই, যতটুকু জানি মা আপনার প্রথম গুরু-

তাসনুভ নাওয়াল রহমান : ভালোলাগার শুরু আসলে কখন বা কোন বয়সে হয়েছে তা বলা মুশকিল। তবে এটুকু বলতে পারি দেখুন, এক থেকে চার বছর বয়সের একটি শিশু কিন্তু পরিবার থেকে অনেক কিছু গ্রহণ করে যেহেতু শিশু অনুকরণ প্রিয়। অন্যদিকে পরিবারের কেউ যখন কোনও কিছু করে হতে পারে- গান, নাচ, কবিতা আবৃত্তি ইত্যাদি তার প্রভাব কিন্তু বাচ্চাদের উপর পড়ে। আমার বেলায় সেটাই হয়েছে। মা গান করতো। মাকে শুনতে শুনতে এক ধরণের ভালোলাগা বা আগ্রহ অনায়াসে তৈরি হয়ে গেছে ছোটবেলা থেকে। যে কোনও বিষয়ের স্বাদ বা টেস্ট এক থেকে চার বছরের শিশুদের তৈরি হয়ে যায়। তারপর দিনদিন এর উন্নতি হয়, ধরতে পারেন পাঁচ থেকে দশ বছর বয়স পর্যন্ত। এরপর কোনও কিছু করা শুরু হয়, আমার সঙ্গে তাই হয়েছে।

আমি স্টেজে প্রথম গান করি যখন আমার চার বছর বয়স। ঘটনাটি বলি, আমার বাবা তখন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে পড়ালেখা করতেন। ওখানে একটি রিইউনিয়নের প্রোগ্রাম হচ্ছিলো যে খানে আমি, মা এবং বাবা গিয়েছিলাম। আমি অনুষ্ঠান দেখে খুবই খুশি হই এবং একটা সময় বলা শুরু করি আমি স্টেজে গান করবো। বাবা তখন আমাকে ভুলিয়ে-ভালিয়ে রাখছিলো কিন্তু বাবার এক বন্ধু যিনি ওখানের দায়িত্বে ছিলেন তিনি আমাকে বলছিলো স্টেজে গান করতে ওঠাবে। তখন একজনে গান গাচ্ছিলো, এইটা শেষ হলে আমাকে স্টেজে ওঠাবে বলেছিলো কিন্তু গান শেষ হওয়ার পর যখন ওঠাচ্ছিলো না তখন আমি বলতে শুরু করি কই আমাকে তো উঠচ্ছে না। এবং বাবা এটা-ওটা বলে আবার ভুলানোর চেষ্টা করছিলো কিন্তু বাবার বন্ধু বললো বাচ্চা মানুষ যেহেতু জিদ ধরছে স্টেজে উঠিয়ে দি। এত মানুষ দেখলে ভয়ে এমনিতে নেমে যাবে। কিন্তু মজার বিষয় হলো এই সময় স্টেজে ছিলো সোলস। তখন আমি জানতাম না। পরে জানতে পেরেছি। সোলস মানে বাচ্চু ভাই গান করছিলো। আমি উঠে বাসার টেলিভিশনে দেখা ‘ভালো আছি ভালো থেকো’ গানটি গাওয়া শুরু করি। এবং দেখি কেউ কোনও কিছু বাজাচ্ছে না। একটি কড দিয়ে রাখছিলো শুধু তখন আমি ঝাড়ি দিয়ে বলি এই বাজাচ্ছো না কেনো। আসলে ঝাড়ি দিয়ে ছিলাম আইয়ুব বাচ্চুকে। ওই বয়সে তো আমার কোনও আইডিয়া ছিলো না উনিকে। এটা সত্য আমি একবার ঝাড়ি দিয়ে পরবর্তী সময় ওনার কাছে বহুবার ঝাড়ি খেয়েছি। উনি মজা করে আমাকে বলতো তুই আমাকে ছোট বেলায় ঝাড়ি দিয়েছিস, তোর সাহস তো ভালোই। 

পরবর্তীতে বাবা-মা আমার গানের বিষয়টি নিয়ে ভাবতে শুরু করলো এবং মায়ের পর প্রথম শাহীনূর রহমান শাহিনের কাছে গান শিখতে পাঠায় বাসা থেকে। তার পরবর্তীতে পান্না আহমেদ এবং এখনও শিখছি উস্তাদ নিয়াজ মোহাম্মদ চৌধুরীর কাছে।

সোনালী নিউজ : একটি গানের জন্য কণ্ঠশিল্পীকে বেশি প্রাধান্য দিতে গিয়ে গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালকে আমরা ছোট করে দেখছি না তো –

তাসনুভ নাওয়াল রহমান : দারুণ একটি প্রশ্ন। দেখুন আমি নিজেও একজন কণ্ঠশিল্পী। সেহেতু এই বিষয়টির সঙ্গে তুলনামূলক ভাবে অনেক কম মুখোমুখি হতে হয়েছে। তবে মিউজিক ডিরেক্টর হিসেবে এই সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছে আমাকে। কারণ হচ্ছে একটি গানের অনেকগুলো ধাপ থাকে, হুট করে হয়না। গানের থিম কল্পনায় আসে এবং লেখা হয়। তারপর গানটি সুর করা হয়, তারপর বানানো হয়, তারপর কণ্ঠ দেওয়া হয়, মিক্স-মাস্টারিং করা হয় এবং সর্বশেষ বাজারজাত বা দর্শকের সামনে উপস্থাপন করা হয়।

ধরেন যদি আমি গানকে একটি বিল্ডিং বা স্ট্রাকচারের অনুসারে ধরি তাহলে প্রথমে আসবে পাইলিং করা বা ভিত্তি স্থাপনের কথা এইটা তো প্রথমে কেউ স্বপ্ন দেখে এবং স্বপ্নকে কথায় রূপান্তর করে। এই কাজটি করে গীতিকার। অন্যদিকে বাড়ির ডিজাইন করে সুরকার মানে গানের তাল, লয় সব কিছু দেখে। তারপর এই বাড়িটা আসলে কি হবে রাজপ্রাসাদ নাকি কুঁড়ে ঘর এবং এই প্রাসাদে বা কুঁড়ে ঘরে কি ধরনের পরিবেশ হবে তা ঠিক করে সঙ্গীত পরিচালক।

পরবর্তীতে বাড়ির রং কি হবে, ফিনিশিং কি হবে, ডেকোরেশনে টাইলস আসবে কিনা এই কাজটি করে একজন ভোকালিস্ট বা কণ্ঠশিল্পী।

ভোকালিস্ট বা কণ্ঠশিল্পী কে? যিনি কথা বলেন বা দর্শকদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ সৃষ্টি করে। গান তো এক ধরনের কথোপকথনই তো। একটি প্রশ্ন ছুড়ে দেওয়া বা কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দেওয়া। এই কাজটি করে কণ্ঠশিল্পী। সেই জন্য সে সকলের সামনে থাকে। তাকেই সামনে পাওয়া যায় একটা অ্যালবামের কভার থেকে শুরু করে সকল স্থানে। করণ, সে দর্শকশ্রোতার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ সৃষ্টি করছে বা তৈরি করছে। 

সে জন্য মিউজিকের সকল কন্ট্রাক্ট কণ্ঠশিল্পীকে ঘিরেই হয়। এখন নতুন আইন হয়েছে যেখানে একটি গানের গীতিকার, সুরকার এবং শিল্পীর কন্ট্রাক্ট করা হচ্ছে। এখন গানটি শ্রোতাদের সমানে যে ভাবেই আসুক না কেনো তার যে রয়েলিটি বা ইনকাম আসবে তা এই তিনজনের ভেতর বণ্টন হবে। দুঃখজনক হলেও সত্য এই আইনে বা চুক্তিতে মিউজিক ডিরেক্টর বা সঙ্গীত পরিচালকের কোনও নাম নাই। আমার প্রশ্ন হলো মিউজিক ডিরেক্টররা যাবে কই? 

দেখুন, একজন ডিরেক্টর হিসেবে যে গানটিতে কাজ করছি সে গানটির মালিক তো আমিও। হ্যাঁ, হতে পারে আমি কাজ করার সময় কিছু টাকা পাচ্ছি কিন্তু তাই বলে আমার কোনও চুক্তি থাকবে না?

আমি একজন মিউজিক ডিরেক্টর হিসেবে বলতে পারি, এই স্থানে একটু তাকানো উচিৎ কারণ অন্যান্য স্থানে যেখানে প্রাধান্য পাচ্ছে মিউজিক ডিরেক্টর, আমাদের দেশে নয় কেনও!

সোনালী নিউজ : ‘তাসনুভের গান, ইন্ট্রোডাকশন অফ পাগল এবং বিরহ আমার’ অ্যালবাম তিনটির পেছনে এমন কোনও ঘটনা আছে, যা কখনও বলতে চেয়েও আপনার ভক্তদের বলতে পারেননি-

তাসনুভ নাওয়াল রহমান : একটি বই যখন লেখা হয় তার পেছনে একটি গল্প থাকে। আমাদের ক্ষেত্রেও একই। একটা অ্যালবাম বা গান যখন তৈরি হয় তার পেছনেও একটি গল্প থাকে। আমার বিষয়টি এমন ২০০৬ সালে নেসক্যাফে ক্যাম্পাস স্টার প্রতিযোগিতায় মাত্র চ্যাম্পিয়ন হলাম। বাসা থেকেও বলতে শুরু করলো সঙ্গীত নিয়ে একটু ভাবতে এবং আমিও ভাবছি একটি অ্যালবাম করবো এবং করা হলো। আমি খুবই সৌভাগ্যবান আমার প্রথম এ্যালবাম ‘তাসনুভের গান’র কাজ বাপ্পা দা মানে বাপ্পা মজুমদার সঙ্গে করা হয়েছে। অধিকাংশ গানই বাপ্পা দা ডিরেক্টশন দিয়েছে। তখন তো অল্প বয়স। 

একদিকে নেসক্যাফে ক্যাম্পাস স্টার অন্যদিকে বাপ্পা দাদা ফোন দিচ্ছে শুধু বাপ্পা দাদা না অনেকের সঙ্গে নিয়মিত কথা হচ্ছে। বন্ধুবান্ধবও দেখছে তাদের সঙ্গে আমাকে কথা বলতে। তখন এক অদ্ভুত ঘোর লাগা অনুভূতি। আমি স্টেজে গান করেছি কিন্তু কখনও স্টুডিওতে গান রেকর্ড করিনি। সব কিছু একদম নতুন, টেনশন, দুরুদুরু বুক। সকল কিছু মিলায় অন্যরকম একটি জগত তৈরি হয়েছিলো আমার ভেতরে এবং পরক্ষনে মুদ্রার অপর পিঠও দেখেছি আমি ‘তাসনুভের গান’ করার সময়। হঠাৎ করে নিজের ভেতরে মনে হচ্ছিলো ‘আমি কিছু একটা হয়েছি’। তবে আমার ভ্রম দ্রুতই কাটে। বুঝতে পারি বিষয়টি এমন নয়। সব কিছু এতটা সহজ নয়। এটা অনেক চর্চার বিষয় এবং ভালো কিছু করতে হলে উড়া যাবে না। পা মাটিতেই রাখতে হবে। ‘তাসনুভের গান’ অ্যালবাম করার সময় এটা বুঝেছি।

‘ইন্ট্রোডাকশন অফ পাগল’ অ্যালবাম করার সময় আমার কোনও স্টুডিও নাই। প্রথমটায়ও ছিলো না তবে বাপ্পা দা যেহেতু কম্পোজার ছিলেন আমার আর চিন্তা ছিলো না। দ্বিতীয় অ্যালবামে এই চিন্তা আসে। আমি বাসায় বসে কিছু একটা করতে পারছি কিন্তু আমাকে তো ভয়েস বা কণ্ঠ দিতে হবে। কোথায় দিবো, আমার তো স্টুডিও নাই। একটি বিষয় হলো ধরেন আমি একটি কাঁঠালকে পিং কালার করে যদি বলি স্ট্রবেরি, আপনারা খান। আমার বলাতে হয় তো একদিন আপনি খাবেন, দু’দিন তারপরে তো তৃতীয় দিন বুঝতে পারবেন এটি কাঁঠাল। অটো টিউন দিয়ে তো আর আপনি নতুনত্ব আনতে পারবেন না। আপনার নিজস্বতা তো প্রকাশ করতে পারবে না। কারণ এক একটা ফলের এক একটি টেস্ট। এমন কি কাঁঠারের ভেতরেও স্বাদের তারতম্য আছে। কথাটি বললাম এই জন্য এখন আমার স্টুডিও আছে, তখন তো ছিলো না। তখন শিখছি, ভয়েস দেও তখন মুখ্য বিষয়। তখন জিতু দা আমাকে সব ধরনের কাজে সাহায্য করেছে। এই অ্যালবামের মাঝামাঝি সোহেল ভাইয়ের সঙ্গে আমার পার্টনারশিপে স্টুডিও হয় ‘স্টুডিও মগ্ন’। মূলত সোহেল ভাই স্টুডিও বিল্ডাপ করে এবং আমি জয়েন্ট করি। ‘ইন্ট্রোডাকশন অফ পাগল’ টাইটেল গানটি ওখানে ওখানে রেকর্ড করা। প্রায় চার-পাঁচটি গান রেকর্ড করি ওই স্টুডিওতে। তারপর এ্যালবামটি বাজারে চলে আসে। 

২০১৫ সালে বিপিএলের থিম সং করার পর একটা কঠিন সময় হঠৎ করেই আসে। সে সময় এমন হয় প্রচুর কাজ আসতে শুরু করে। সকলেই আমাকে নিয়ে কাজ করাতে চায়। ধরেন একটি পুকুরে যে কয়টি খাদ্য স্তর থাকে তার ভেতরে উপরের স্তরের খাদ্য এতদিন আমি খেয়ে আসছি। হঠাৎ করে মধ্যস্তরের খাদ্য!

বুঝুন আমার কি অবস্থা। এখানে সব রাঘববোয়াল ঘুরঘুর করছে। এদিকে আমি কোনটি থুয়ে কোনটি খাবো বুঝে উঠতে পারছি না। কারণ একবার ভুল করলেই পিছলে যাবো। তখন তো আমি ‘না’ বলা শিখিনি। যে যাই বলে আমি ‘হ্যাঁ’ বলি। তখন ইশতিয়াক আহমেদ ভাই আমাকে গভীর দোটানা থেকে উদ্ধার করলো এবং তিনি আমাকে শিখালে ‘না’ বলা।

তিনি আমাকে বলে ক্লায়েন্টের কাজ তো থাকবে সঙ্গে নিজের একটি এ্যালবাম আনো। এখান থেকেই তৃতীয় এ্যালবামের কাজ শুরু হয় ‘বিরহ আমার’ করা।

সোনালী নিউজ : কুমার বিশ্বজিৎ, বাপ্পা মজুমদার, মিনার, কণা, এবং ঐশীর সঙ্গে আপনি কাজ করেছেন। কার সঙ্গে কাজ করতে আনন্দ পেয়েছেন বেশি-
 
তাসনুভ নাওয়াল রহমান : এভাবে বলা খুবই কঠিন। বিষয়টি হচ্ছে এখানে পাঁচজন ব্যক্তির নাম আছে এবং এই পাঁচটি মানুষই হচ্ছে আমার হাতের পাঁচটি আঙ্গুরের মতো। এখন যদি প্রশ্ন করা হয় আমার হাতের কোন আঙ্গুলটি প্রিয় আমি বলবো পাঁচটি। কারণ, আমার হাতের একটি আঙুর যদি না থাকে তাহলে আমার হাত অসম্পূর্ণ। দেখুন আমার সঙ্গে যারা কাজ করেছে, এবং আমি যাদের সঙ্গে কাজ করেছি সেই দিক থেকে আমি ভাগ্যবান। ভাগ্যবান এইজন্য যে আমি তাদের জন্য তাসনুভ হতে পেরেছি। সকলেই আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ।

তবে যদি বলতেই হয় বাপ্পা দা’র কথা বলবো। সত্য কথা বলতে আমার সংগীত পরিচালক হওয়ার কথা ছিলো না। হয়েছি বাপ্পা দা, আহসান রাব্বি’র জন্য। বাপ্পা দা আমাকে অসংখ্য ভাবে সাহায্য করেছে। দাদা আমার কাছে অন্যরকম। রোকন ইমনের কথা বলতেই হয় যিনি আমার ঘারে পাড়া দিয়ে এক প্রকারের কাজ করিয়েছেন। মূলত উৎসাহ দিয়ে সব সময় পাশে থেকেছেন। তিনি একজন মারাত্মক কম্পোজার এবং সঙ্গীত পরিচালক। তারপর বুলেট ভাই, যিনি সর্বাত্মক ছায়া হয়ে আছেন এই মুহূর্তেও। মানে আমি যতই জ্বালাই যার কোনও অভিযোগ নাই এবং অন্যজন মাহাতিম সাকিব।

সোনালী নিউজ : ‘মিউজিক ফ্যাক্টরি’ সম্পর্কে জানতে চাই এবং এর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা- 

তাসনুভ নাওয়াল রহমান : ‘মিউজিক ফ্যাক্টরি’ নামটি আমার বাবার দেওয়া। আমি স্টুডিও মগ্ন থেকে ২০১৫ সালের শেষের দিকে চলে আসি, সে সময় ‘বিরহ আমার’ অ্যালবামের কাজ চলছিলো। ওই সময় রোকন ইমন বলেন তার স্টুডিওতে গিয়ে অ্যালবামের কাজ শেষ করতে। তখন আমি খুবই খারাপ সময়ের ভেতর দিয়ে যাচ্ছিলাম। বিষয়টি এমন ছিলো একটা সময় আমি কাউকে চিনতাম না তাই যাওয়ার স্থান ছিলো না, এখন আমি সকলকে চিনি এবং কোথায় গেলে কাজ হবে সেটাও জানি কিন্তু কোনও কিছু করতে পারছি না। সে সময় আমি একবার ভেবেছিও জব করবো। সবকিছু বাদ দিয়ে শুধু নিজের সলো করবো এবং কর্পোরেট লাইফে চলে যাবো। এখানে আর একটি সমস্যা হয় তখন, যাকেই বলি জবের কথা কেউ বিশ্বাস করে না। সকলে মনে করে আমি মজা করছি।

এই সময় একদিন বাবাকে বলি জব করবো বা কিছু একটা করবো। তখন বাবা বলেছিলো জব যদি করতেই হয় তবে এত বছর কেনও নষ্ট করলে। পড়ালেখা শেষ করেই তো শুরু করতে পারতে। এখন বলো এই সমস্যা থেকে উত্তরণের কোনও পথ আছে নাকি তোমার জানা। তখন স্টুডিওর কথা বলি। বাবা শুনে বললো কত খরচ হতে পারে, তখন আমি একটি বাজেট দি। বাবা শুনে কতক্ষণ চুপ থেকে বললো এত অনেক টাকা। তারপরের দিন বিকেলে চা খেতে ডেকে বাবা বললো দেখো আমি একটি লোণ করেছি তোমার স্টুডিওর জন্য। তবে তুমি আমাকে কথা দেও তোমার স্টুডিও বাংলাদেশের এক নাম্বার স্টুডিও হবে। আমি বাবাকে কথা দি, আমি আমার বেস্ট দিয়ে চেষ্টা করবো। ওহ্যাঁ, আমার স্টুডিওর লোগটিও বাবার করা যদিও বাবা একজন ডাক্তার অতটা গ্রাফিক্সের কাজ জানে না। তবুও এই লোগ থেকে যাবে কারণ আর ইমোশন এখানে আছে।

আমি যেহেতু গানের কাজ করি না শুধু, প্লেব্যাক ও ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, টিভিসির জিংগেল ও এনজিও ভিত্তিক ডকুমেন্টারির থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরণের কাজ করি। তো সেক্ষেত্রে ‘মিউজিক ফ্যাক্টরি’ নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তো আছেই। ইতিমধ্যে গ্লোবালি কাজ করা শুরু করেছি। এবং শুধু মিউজিক নয় একটি প্রোডাকশন হাউজ তৈরি কারার ইচ্ছা আছে ‘মিউজিক ফ্যাক্টরি’কে।

সোনালী নিউজ : নবীন এবং তরুণদের জন্য ‘মিউজিক ফ্যাক্টরি’র কোনও পরিকল্পনা আছে কি-

তাসনুভ নাওয়াল রহমান : পরিকল্পনা তো থাকেই। তবে দেখুন একটা সময় শখকরে মিউজিক করতাম, সেই শখটি এখন প্রফেশন। আমাকে পেট এবং পিটের কথা চিন্তা করতে হয়। শুধু মনের ক্ষুধার কথা চিন্তা করলে হয় না। নবীন এবং তরুণরা যদি আমার সঙ্গে কাজ করতে চায় তাহলে একটু কঠিন। তবে এইটা বলছি না যে কাজ করবো না। চান্স পেলে অবশ্যই করবো তবে তার সঙ্গে যার মেধা এবং সৃষ্টিশীলতা আমাকে আলোড়িত করবে। আমাকে কিছু শেখাবে। ‘মিউজিক ফ্যাক্টরি’ তাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

সোনালী নিউজ : তাসনুভের ভক্তরা তার কাজ বা গান খুব দ্রুত পাচ্ছে বলে মনে করেন আপনি- 

তাসনুভ নাওয়াল রহমান : দেখুন সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে আমার প্রচুর কাজ করা হচ্ছে। তবে নিজের বলতে আমি যে একজন কণ্ঠশিল্পী সেই হিসেবে অনেকদিন কাজ করা হয়নি। তবে শুরু করেছি কারণ আমাকে সামনে আনাও প্রয়োজন সেটা বুঝতে পেরেছি। মিউজিক ভিডিওর কাজ হাতে নিবো তবে এই মুহূর্তে আইসিটি মন্ত্রণালয়ের একটি কাজ করছি যেখানে ভোকাল আমি থাকছি। যদিও এখানে কোরাস ভয়েসে আরও শিল্পী আছে তবে সুর থেকে শুরু করে রিলিক্সও আমার। আশা করি খুব দ্রুত শ্রোতাদের সামনে আসবে গানটি। যদিও ব্যান্ডে আমার কাজ ছিলো তবে নিজের কাজ আবার শুরু করেছি। সম্ভবত দু’তিন মাসের মধ্যে ‘ভাললাগে না’ নামের একটি মিউজিক ভিডিও আসছে লা পয়েন্ট থেকে। গানটি লিখেছি আমি এবং সোহান।

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Dutch Bangla Bank Agent Banking
Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System