• ঢাকা
  • সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১১ আশ্বিন ১৪২৯

শোকে পাগলপ্রায় শেহনাজ, ছেড়েছেন খাওয়া-ঘুম


বিনোদন ডেস্ক সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১, ১২:১৪ এএম
শোকে পাগলপ্রায় শেহনাজ, ছেড়েছেন খাওয়া-ঘুম

ঢাকা : শেহনাজের কোলে মাথা রেখেই শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন সিদ্ধার্থ শুক্লা। ঘুমানোর আগের মুহূর্ত পর্যন্ত পিঠে হাত বুলিয়ে দিতে বলেছিলেন প্রেমিকাকে। শেহনাজ পিঠে হাত বুলিয়ে দিতেই গভীর ঘুম নেমে এলো তার চোখে। সেই ঘুম আর ভাঙলো না।

পরদিন সকালে সিদ্ধার্থের ঠান্ডা শরীরে হাত দিতেই চমকে উঠলেন শেহনাজ। কোনও এক অজানা আতঙ্কে তখন তার বুক কাঁপছে। তড়িঘড়ি ছুটে এলেন ডাক্তার। তবে ততক্ষণে সব শেষ হয়ে গিয়েছে।

জীবনের এমন এক কঠিন অভিজ্ঞতার সম্মুখীন যে কখনও হতে হবে, এমনটা মোটেও আশা করতে পারেননি শেহনাজ। তার অজান্তে তার কোলে মাথা দিয়েই চিরতরে পৃথিবী ছেড়ে বিদায় নিলেন সিদ্ধার্থ। এক দুঃসহ স্বপ্নের মতো এই ঘটনা তাড়িয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে শেহনাজকে। এই ঘটনায় শেহনাজ এখনও শকড হয়ে রয়েছেন। প্রাণোচ্ছল স্বভাবের শেহনাজের এই অবস্থা দেখে উদ্বিগ্ন তার পরিবার।

সিদ্ধার্থের মৃত্যুতে শোকে পাথর হয়ে গিয়েছেন তিনি। খাওয়া-দাওয়া একপ্রকার ছেড়েই দিয়েছেন। চোখে ঘুম নেই। এমন অবস্থায় তার শরীর কিভাবে ভালো থাকবে, সেই নিয়ে চিন্তিত তার পরিবারের সদস্যরা।
শেহনাজের এই কঠিন সময়ে তার পাশে থেকে সব সময় তাকে সামলাচ্ছেন তার ভাই শেহবাজ। এমনকি সিদ্ধার্থ শুক্লার মাও এ কঠিন মুহূর্তে নিজেকে শক্ত রেখেছেন। তিনিই সানাকে (শেহনাজের ডাক নাম) প্রতিমুহূর্তে আগলে আগলে রাখছেন।

সিদ্ধার্থের মৃত্যুর খবর শুনেই ভেঙে পড়েছেন শেহনাজ। সিদ্ধার্থের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার সময়ে শ্মশানে উপস্থিত ছিলেন তিনি। সে সময় তার অবস্থা দেখে চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি কেউ। বারবার সিদ্ধার্থের শববাহী গাড়ির দিকে ছুটে যাচ্ছিলেন শেহনাজ। শ্মশানভূমিতে সিদ্ধার্থের মরদেহ আগলে বসে একনাগাড়ে বলে চলেছিলেন ‘সিদ্ধার্থ মেরা বাচ্চা…’। এমনটাই জানিয়েছেন অভিনেত্রী সম্ভাবনা শেঠ।

সিদ্ধার্থ এবং শেহনাজের সম্পর্ক গড়ে ওঠে আজ থেকে প্রায় দুই বছর আগে। বিগ বস সিজন ১৩তেই তাদের আলাপ। সেখানেই গড়ে ওঠে তাদের প্রেম। যে প্রেম হয়তো চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসেই পরিণতি পেত। সিদ্ধার্থ এবং শেহনাজ অনুরাগীরা ভালোবেসে তাদের নাম দিয়েছিলেন সিডনাজ।

সিডনাজ জুটিতে ভাঙ্গন ধরিয়ে শেহনাজের কোলে মাথা রেখেই চিরঘুমের দেশে পাড়ি দিলেন সিদ্ধার্থ। কথা দিয়েছিলেন, সারা জীবন পাশে থাকবেন। তবে সেই প্রতিশ্রুতি ভেঙে মাঝপথেই চিরতরে না ফেরার দেশে চলে গেলেন সিদ্ধার্থ।

সিদ্ধার্থবিহীন এই সংসারে বড়ই একা হয়ে পড়েছেন শেহনাজ। তার মানসিক এবং শারীরিক পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন তার পরিবার। পরিস্থিতি এমনই যে তাকে এক মুহূর্তের জন্যও একা ছাড়তে ভরসা পাচ্ছেন না কেউ। তবে এই কঠিন মুহূর্তেও সিদ্ধার্থের মা রিতা শুক্লা যেভাবে শক্ত হাতে পরিস্থিতি সামাল দিচ্ছেন তা দেখে তাকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন নেটিজেনরা। সিদ্ধার্থের মৃত্যুর পর যাবতীয় দায় দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। শেহনাজকেও আগলে রাখছেন নিজের মেয়ের মতো করে।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System