• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ মে, ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
abc constructions

মামুনুল হক পলাতক, খুঁজে পেলেই গ্রেফতার


নিজস্ব প্রতিবেদক এপ্রিল ১৬, ২০২১, ০৭:২৯ পিএম
মামুনুল হক পলাতক, খুঁজে পেলেই গ্রেফতার

ফাইল ছবি

ঢাকা: হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি মামুনুল হক পলাতক আছেন বলে জানিয়েছেন ডিএমপির মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার সৈয়দ নূরুল ইসলাম।

সাংবাদিকদের তিনি বলেছেন, মামুনুল হককে গ্রেফতারের জন্য আমরা গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রেখেছি। অবস্থান শনাক্ত করা গেলেই তাকে গ্রেফতার করা হবে।

সাম্প্রতিক সহিংসতা ও রিসোর্টকাণ্ডে রাজধানীর পল্টন থানা ও নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানায় দুটি মামলা হয়েছে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে। এছাড়া, ২০১৩ সালের শাপলা চত্বর তাণ্ডবের ঘটনাতেও তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা আছে।

এ বিষয়ে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন,‘আমরা তদন্ত করে যাচ্ছি, তদন্তের একটা পার্ট হল আটক করা। অনেক সময় পলাতক থাকলে আসামিকে আটক করা যায় না। তবে আটক না হওয়া মানে তো আর তদন্ত থেমে থাকা নয়।

‘তদন্তের আরও অন্যান্য দিক আছে। যে অপরাধ সংগঠিত হয়েছে তার সপক্ষে কী স্বাক্ষ্য প্রমাণ আছে, সেগুলো সংগ্রহ করা তদন্তের গুরুত্বপূর্ণ পার্ট। এই কাজগুলো চলমান আছে।’

অন্যদিকে ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের কাছেও মামুনুল ‘পলাতক’। ডিএমপি গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আপাতত যতক্ষণ আমরা তাকে ধরতে না পারছি, ততক্ষণ তিনি পলাতক। তিনি লুকিয়ে আছেন, তবে কোথায় লুকিয়ে আছেন, সেটা আমরা বের করার চেষ্টা করছি। তিনি মোটামুটি নজরদারির মধ্যেই আছেন।’

তিনি বলেন, ‘মামুনুল হক দেখলেন তার কথায় তো অনেক কিছু হয়ে যাচ্ছে, অনেক সমর্থক তার, উনি যা বলছেন তারা তাই করছেন। ভাস্কর্যবিরোধী বিক্ষোভ থেকে শুরু করে মোদিবিরোধী বিক্ষোভে তিনি যা বলেছেন, তাই হয়েছে। তখন তিনি ভাবলেন জামাত-বিএনপি তার সঙ্গে আছে, তিনি তাহলে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসীন হতে পারবেন।

‘সমমনাদের নিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসার একটা চিন্তা তার মধ্যে চলে এসেছিল। বড় নেতা হতে চেয়েছিলেন তাই তার বক্তব্যের ধরন পাল্টে গিয়েছিল। কিন্তু আইনের ব্যত্যয় যারাই করেছেন তারা কেউ ছাড় পাবে না, সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে। শুধু সময়ের ব্যাপার, আমরা শুধু সঠিক সময়ের অপেক্ষা করছি।’

এদিকে রিসোর্টকাণ্ডের পর থেকে মামুনুল হককে জনসমক্ষে দেখা যায়নি। তিনি শিক্ষকতা করেন মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদ্রাসায়।তিনি ফেসবুকে যেসব লাইভ করেছেন সেগুলো মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদ্রাসা থেকেই করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন তার ঘনিষ্ঠরা।এমনকি গ্রেফতারের ভয়ে মাদ্রাসার পাশে তার বাসাতেও যাচ্ছেন না মামুনুল হক।

সোনালীনিউজ/আইএ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School