• ঢাকা
  • রবিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৯ কার্তিক ১৪২৮
সংকট কাটাতে নানা পদক্ষেপ

ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে এলএনজি আমদানি


বিশেষ প্রতিনিধি সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১, ০৪:১৪ পিএম
ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে এলএনজি আমদানি

ঢাকা : দেশের চলমান গ্যাসসংকট মোকাবিলা ও ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার। এর মধ্যে রয়েছে-বন্ধ হয়ে যাওয়া খনি ও কূপগুলোর আরো গভীরে অনুসন্ধান। একই সঙ্গে উন্নত প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে হাইপ্রেশার জোনগুলোতে অনুসন্ধান ও উত্তোলন কূপ খনন করা। এসব কাজে দেশীয় প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী ও কার্যকর করে তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রণালয় জানায়, যেসব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে সেগুলো শেষ হলে দেশে গ্যাসের উৎপাদন বাড়বে। এতে সংকট কিছুটা হলেও কমবে। তবে যতক্ষণ তা না হচ্ছে, ততক্ষণ ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে এলএনজি আমদানি ও তার ব্যবহার।

বর্তমানে দেশে গ্যাসের দৈনিক চাহিদা ৪৩০ কোটি ঘনফুট। গত ১৪ সেপ্টেম্বর পেট্রোবাংলা মোট সরবরাহ করে ৩১০ কোটি ঘনফুট গ্যাস। এর মধ্যে দেশের গ্যাসক্ষেত্রগুলো থেকে ২৪২ কোটি ঘনফুট গ্যাস পাওয়া গেছে। চাহিদা ও সরবরাহে ঘাটতি ছিল ১২০ কোটি ঘনফুট। গত দশকের প্রথমদিকে সরকারের নানা কার্যক্রমে দেশের দৈনিক গ্যাস উৎপাদন বেড়ে ২৭০ কোটি ঘনফুটে পৌঁছেছিল। বর্তমানে তা কমে ২৪০ কোটি ঘনফুটে নেমে এসেছে। বর্তমানে দেশের গ্যাসক্ষেত্রগুলো থেকে দিনে ২৪০ কোটি ঘনফুট গ্যাস মিলছে।

জ্বালানি বিভাগের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি বছর গ্যাসের দৈনিক উৎপাদন ২৩০ কোটি ঘনফুটে নেমে আসতে পারে।

এ মুহূর্তে গ্যাসের অভাবে প্রায় ২ হাজার ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাচ্ছে না। প্রতি ইউনিট গ্যাসে বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ গড়ে ৩ টাকা, কয়লায় সাড়ে ৮ টাকা, তেলে (ফার্নেস) ১৪ টাকা ও তেলে (ডিজেল) ২৪ টাকা। সে কারণে বিদ্যুৎ বিভাগ লোকসান কমানোর জন্য গ্যাস দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে চায়।

জ্বালানি বিভাগের দেওয়া তথ্যমতে, সরকার তার নিয়মিত গ্যাসক্ষেত্র থেকে উৎপাদন বাড়াতে চাইছে। এরই অংশ হিসেবে চলমান কূপের পাশাপাশি ওয়ার্কওভার (নতুন ও গভীর) কূপ খনন করা হচ্ছে। এর বেশির ভাগই সিলেট বিভাগে। বাপেক্সের নতুন তিনটি কূপ থেকে গ্যাসের উৎপাদন বাড়বে ২০ মিলিয়ন ঘনফুট। তবে এ জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত।

এ ছাড়া, আরো কয়েকটি কূপ খননের কাজ চলমান আছে। এসব প্রকল্প শেষ হলে দেশে ক্রমেই বাড়তে থাকা গ্যাসের ঘাটতি কিছুটা কমবে।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় জানায়, বর্তমানে গ্যাসের উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হচ্ছে। এতে খরচ ধরা হয়েছে ১৬৩ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

এর আওতায় সিলেটের জৈন্তাপুর, বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রে তিনটি নতুন কূপ খনন বা ওয়ার্কওভার করা হচ্ছে।

এগুলো হলো-সিলেট গ্যাস ক্ষেত্র, কৈলাসটিলা গ্যাস ক্ষেত্র ও বিয়ানীবাজার গ্যাসক্ষেত্র।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শে রূপকল্প-২-এর আওতায় এই নতুন গ্যাস কূপ খননের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এটা বাস্তবায়ন করছে সরকারি কোম্পানি বাপেক্স।

বাপেক্স সূত্র বলছে, নির্ধারিত সময়ের ছয় মাস আগেই তাদের প্রকল্প শেষ হবে। ফলে গ্যাসের যে সংকট চলমান আছে,তা অনেকাংশে কমে আসবে।

মন্ত্রণালয় জানায়, এরই মধ্যে ওয়ার্কওভার অপারেশনের কাজ এবং বাপেক্সের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। শেষ হয়েছে দরপত্র ও মালামাল সংগ্রহের কাজ। এখন চলছে দরপত্র মূল্যায়ন, যা প্রায় শেষ পর্যায়ে। শেষ হয়েছে বিদেশি পরামর্শক নিয়োগের কাজও। পরিবেশগত ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করা হয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তরে।

বর্তমানে সিলেট-৮ নম্বর কূপের (জৈন্তাপুর এলাকায়) রিগ ফাউন্ডেশন মডিফিকেশন কাজ চলমান আছে। এই কূপের লোকেশেন শ্রীকাইল-৪ কূপ খনন শেষে বিজয়-১৮ রিগ মবিলাইজেশন শুরু হয়েছে।

মন্ত্রণালয় জানায়, গ্যাস সংকট থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলায় রূপকল্প-২ খনন প্রকল্পের আওতায় জকিগঞ্জ-১ অনুসন্ধান কূপ খনন এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি খননের কাজ শুরু হয়। খননের সময়সীমা ঠিক করা হয়েছিল ৩০ সেপ্টেম্বর। কিন্তু এর আগেই এই কূপটির সফল খনন শেষ করে বাপেক্স। এতে ব্যয় হয় ৮৭ কোটি ২২ লাখ টাকা।

এদিকে এরই মধ্যে জকিগঞ্জ-১ কূপে ২ হাজার ৯৮১ মিটার খনন সম্পন্ন করে ৪টি জোনে ডিএসটি সম্পন্ন করেছে বাপেক্স। কূপটির ২ হাজার ৮৭০ মিটার গভীরে ৬৮ বিসিএফ বা বিলিয়ন ঘনফুট বাণিজ্যিক গ্যাসের মজুদ পাওয়া গেছে।

এ পরিপ্রেক্ষিতে গত ৯ আগস্ট জ্বালানি নিরাপত্তা দিবসে জকিগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রকে দেশের ২৮তম গ্যাসক্ষেত্র হিসেবে ঘোষণা করে সরকার।

বর্তমানে জকিগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্র এলাকায় জকিগঞ্জ-১ কূপের বিজয়-১২ রিগ ডাউন করে মেইনটেন্যান্সের কাজ চলমান আছে এবং এই কাজ শেষে সালদা নদী-২ ওয়ার্কওভারের উদ্দেশ্যে মবিলাইজেশন শুরু হবে।

অন্যদিকে মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া ও রাজনগর উপজেলায় অবস্থিত ফেঞ্চুগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রেটির দুটি কূপ খননের কাজ চলমান আছে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।

এই কূপ খননে বাপেক্সের নিজস্ব অর্থায়নে ফেঞ্চুগঞ্জ-৩ কূপ এবং ফেঞ্চুগঞ্জ-৪ কূপ ওয়ার্কওভার কার্যক্রম চলছে।

ফেঞ্চুগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রে বিজয়-১০ রিগের মাধ্যমে ফেঞ্চুগঞ্জ-৪ কূপ ওয়ার্কওভার সম্পন্ন করা হয়েছে এবং জাতীয় গ্রিডে দৈনিক ১০-১২ এমএমসিএফ হারে গ্যাস সরবরাহ হচ্ছে।

বর্তমানে একই রিগ ফেঞ্চুগঞ্জ-৩ কূপ ওয়ার্কওভারের লক্ষ্যে মবিলাইজেশন সম্পন্ন করে ওয়ার্কওভার কাজ শুরু করা হয়েছে।

এ ছাড়া সিলেট গ্যাস ফিল্ডস লিমিটেড (এসজিএফএল)-এর হরিপুর স্ট্রাকচারে সরকারি অর্থায়নে ডিসেম্বর ২০১৩ থেকে ডিসেম্বর ২০২১ মেয়াদকালে ১৭১ কোটি ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে সিলেট-৯ নম্বর কূপ খনন হচ্ছে।

এরই মধ্যে সিলেট-৯ নম্বর কূপটির খনন শেষে গ্যাস গ্যাদারিং পাইপলাইন নির্মাণ করে চলতি মাসের ৩ তারিখ থেকে দিনে ৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জালালাবাদ গ্যাস সরবরাহ এলাকায় সরবরাহ করা হচ্ছে।

জানা যায়, বাংলাদেশে যেসব স্থানে গ্যাস পাওয়া গেছে, তা গড়ে ৫ হাজার মিটার গভীরতায়। বিজিএফসিএলের পাঁচটি গ্যাসক্ষেত্রেও এই স্তর থেকে গ্যাস মিলেছে। এই স্তরের আরো নিচে গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ জন্য প্রয়োজন ডিপ ড্রিলিং বা মাটির আরো গভীরে খনন।

বাপেক্সের এমডি মোহাম্মদ আলী বলেন, বাপেক্স এখন ৫ হাজার মিটারের বেশি ৭ হাজার মিটার সক্ষমতার রিগ কেনার উদ্যোগ নিয়েছে। সরকারও এজন্য সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে। এ ছাড়া বাপেক্স সব ধরনের বিশেষজ্ঞ নিয়োগের কাজ শেষ করেছে।

বিদেশি প্রতিষ্ঠানে কাজ করা অভিজ্ঞ কর্মীদের নিয়োগ দিয়েছে বাপেক্স। একই সঙ্গে অবসরে চলে যাওয়া অভিজ্ঞ বাপেক্স কর্মীদেরও চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের মাধ্যমে ধরে রাখা হয়েছে।

সরকারের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জ্বালানি বিভাগ এবং বাংলাদেশ তেল-গ্যাস ও খনিজসম্পদ করপোরেশন (পেট্রোবাংলা) থেকে পাওয়া তথ্যমতে, প্রতি বছর দেশে গ্যাস ব্যবহার হয় গড়ে ১ ট্রিলিয়ন ঘনফুট (টিসিএফ) বা ১০০ বিলিয়ন ঘনফুট (বিসিএফ) থেকে ১ দশমিক ১ টিসিএফ।

এর মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদনে ৪৩ দশমিক ২৮ শতাংশ, শিল্প কারখানায় ১৫ দশমিক ৭৯ শতাংশ, বাসাবাড়িতে ১৫ দশমিক ২৫ শতাংশ, শিল্পকারখানার নিজস্ব বিদ্যুৎকেন্দ্রে (ক্যাপটিভ পাওয়ার) ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ, সার উৎপাদনে ৫ দশমিক ৫৪ শতাংশ, সিএনজি স্টেশনে ৪ দশমিক ১৬ শতাংশ, বাণিজ্যিক দশমিক ৭৬ শতাংশ ও চা-বাগানে দশমিক ১০ শতাংশ ব্যবহার হয়।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System